আমি এখন কী করবো, কোথায় যাবো?

প্রকাশিতঃ ৬:২৪ অপরাহ্ণ, শুক্র, ১৭ এপ্রিল ২০

মোঃ মনির হোসেন মোল্লা : প্রথমে জানতাম, লকডাউনের মেয়াদ এপ্রিলের চার তারিখ পর্যন্ত। আমরা মধ্যবিত্ত পরিবারের সদস্যরা সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে এখন তো অবর্ণনীয় কষ্টের ভেতর দিন কাটাতে বাধ্য হচ্ছি। লকডাউনের মেয়াদ ২৪/২৫ এপ্রিল পর্যন্ত অর্থাৎ প্রায় ২০/২১ দিন বাড়ানো হলো।

সরকারিভাবে বিভিন্ন হেল্প নাম্বার দিয়ে গণবিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হলো: কেউ না খেয়ে থাকবে না। ঘরে খাবার না থাকলে ঐ সকল হেল্প নাম্বারে কল করে জানালে খাবার জুটে যাবে! এবং সে খাবার বাসায় পৌঁছে যাবে!!‬

‪ভাই, গত ৩ বৎসর যাবৎ সরকারের পক্ষ হতে আমাকে প্রতি মাসে বিশ হাজার টাকারও কম বেতনাংশ দেয়া হচ্ছে।

যা দিয়ে আমাকে BRAC বিশ্ববিদ্যালয়ে CSE (Computer Science and Engineering, 3rd yr, second quarter) বিষয়ে অধ্যয়নরত বড় ছেলের, JSC পরিক্ষার্থী ছোট ছেলের লেখাপড়ার খরছ সহ ভারা-বাসার যাবতীয় খরচাদী, আমার নিজের হাইপারটেনশন ও অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ মাত্রার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনের মেডিসিন সামগ্রী ক্রয় করা এমনিতেই অসম্ভব ছিল, যা ধার-দেনার মাধ্যমে ও বন্ধু বান্ধবদের সহযোগিতায় কোনোভাবে সংসার-ধর্ম চালিয়ে আসছিলাম।‬

‪আজ এপ্রিল মাসের ১৬তারিখ। লজ্জার কথা হলেও বাস্তবতাকে যেহেতু এড়ানোর কোনো উপায় নাই এবং সম্ভাব্য সকল উৎসও যেহেতু রিপিটেডলি অপারগতা প্রকাশ করেছে।

তাই আমি এখন কী করিবো, কোথায় যাইবো(?), ভাবিয়া কোনো কুল-কিনারা করিতে না পারিয়া সংসার ধর্মের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে আমি অনিশ্চিত!!

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ