এ যেন আরেক দিয়াবাড়ি

প্রকাশিতঃ ৬:১৮ অপরাহ্ণ, রবি, ১১ অক্টোবর ২০

রাব্বি হাসান

দূর থেকে তাকালে মনে হবে এ যেন শুভ্র আকাশ এসে মাটিতে আঁচড়ে পড়েছে। দূর থেকে তাকালে বুঝার জো নেই আকাশ আর মাটির পার্থক্য, মনে হবে এ যেন দূরের আকাশ নেমেছে।চারদিকে কাশফুল বাতাসে দোল খাচ্ছে, কিশোর ছেলেরা ফুটবল খেলায় মত্ত, এমনই মনোমুগ্ধকর দৃশ্যের দেখা মিলবে কুমিল্লা জেলার সর্বউত্তরের উপজেলা মেঘনার লুটেরচর ইউনিয়নে।

মেঘনা নদীর তীর ঘেঁষে সবুজের সমারোহে সমৃদ্ধ মেঘনা উপজেলা। মেঘনা নদীর তীরে চিকচিক করা বালির উপর কাশফুলের এ বিশাল ছড়াছড়ি যেন মেঘনা উপজেলার মানুষের বিনোদনে কেন্দ্র হয়ে রয়েছে।

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলায় প্রবেশ পথেই চোখে পড়বে এমন মায়াবী কাশফুলের দৃশ্য। রাস্তার দুপাশে প্রায় ৪শ বিঘা জমির পুরোটাই শুভ্র কাশফুলে আবৃত। বিকেল হলেই প্রিয় মানুষকে নিয়ে, পরিবারকে নিয়ে, বন্ধুদের নিয়ে অনেকেই কাশফুলের বিনোদনে মেঠে উঠেন। চিকচিক করা বালির উপর কিশোর ছেলেরা ফুটবল খেলায় মেঠে উঠে। দেখে বুঝার জো নেই ছোট এই মেঘনা উপজেলায় এ কাশফুলের চিত্র হয়ে উঠেছে অন্য আরেক দিয়াবাড়ি।

মেঘনা উপজেলার বিনোদন প্রিয় মানুষদের জন্য লুটেরচর ইউনিয়নের এ কাশফুলের স্থান হয়ে উঠেছে প্রধান বিনোদন কেন্দ্র। তবে এই উপজেলার মানুষদের মধ্যে বিনোদনের আমোদে-প্রমোদের চেয়ে কিছু দিন পর কাশফুলের এ মেলাকে হারানোর বিয়োগ ব্যাথাই যেন আঁচড়ে পড়ে। কারণ দু’পাশের পুরো ৪শ বিঘা জমির মালিকানা রয়েছে ব্যক্তিমালিকানা প্রতিষ্ঠান ফ্রেশ কোম্পানি প্রাইভেট লি. এর। বিনোদন কেন্দ্র নয় বরং কারখানা ও ব্যবসায়ীক কেন্দ্র তৈরির জন্যই পুরোটা জায়গা কিনে নিয়েছে ফ্রেশ কোম্পানি লি.। সে কারণে এ উপজেলার মানুষের মধ্যে বিরাজ করছে উৎকণ্ঠা, কারণ এমন মনোমুগ্ধকর দৃশ্য হাতের নাগালে আর কোথাও পাবে না তারা। পাবে না শুভ্র আকাশের ন্যায় এমন কাশফুলের ভূমি।

তাইতো সময় পেলেই মেঘনা ও পাশ্ববর্তী গজারিয়া উপজেলার বিনোদন প্রিয় হাজারো মানুষ ছুটে আসছেন কাশফুলের শুভ্রতা উপভোগ করার জন্য। যতদিনই সম্ভব হবে উপভোগ করার ঠিক ততদিনই পূর্ন উপভোগ করবেন এমন সবুজের মাঝে শুভ্রতার দৃশ্য।

লেখক : গণমাধ্যমকর্মী।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।