করোনামুক্ত হলেন আফ্রিদি

প্রকাশিতঃ ২:০৩ অপরাহ্ণ, শুক্র, ৩ জুলাই ২০

স্পোর্টস ডেস্ক : মারণ ভাইরাসকে হারিয়ে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠলেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহিদ আফ্রিদি। আক্রান্ত হওয়ার ১৯ দিনের মাথায় করোনা মুক্ত হলেন সাবেক এই পাকিস্তানি অলরাউন্ডার। শহিদ আফ্রিদির পাশাপাশি করোনা মুক্ত হয়েছেন আফ্রিদির স্ত্রী এবং দুই কন্যাসন্তান। আফ্রিদি টুইটারে নিজেই জানালেন এই কথা। গত ১৩ জুন নিজেকে করোনা আক্রান্ত ঘোষণা করেছিলেন তিনি।

পরবর্তীতে করোনা আক্রান্ত হন আফ্রিদির স্ত্রী এবং দুই কন্যাসন্তান আকসা এবং আনশা। কিন্তু সর্বশেষ করোনা পরীক্ষায় প্রত্যেকেরই রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে বলে জানিয়েছেন আফ্রিদি।

আফ্রিদি বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) এক টুইটবার্তায় লেখেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ, করোনা আক্রান্ত আমার স্ত্রী এবং দুই কন্যা আকসা এবং আনশার শরীরে পুনরায় যে কোভিড-১৯ পরীক্ষা হয়েছে তাতে তারা সম্পূর্ণ সুস্থ।’

প্রায় তিন সপ্তাহ পর স্ত্রী এবং কন্যাসন্তানদের সঙ্গে নিজেও সুস্থ হওয়ার ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন আফ্রিদি। অনুরাগীদের উদ্দেশ্যে আফ্রিদি আর বলেছেন, ধন্যবাদ প্রত্যেককে যারা প্রত্যেকে দুঃসময়ে পাশে থেকেছেন, আমাদের জন্য প্রার্থনা করেছেন। সর্বশক্তিমান আপনাদের ভালো রাখুন। আবার পরিবারকে সময় দিতে পারব। আমি আমার ছেলেমেয়েদের খুব মিস করছিলাম।

উল্লেখ্য, গত ১৩ জুন করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর অনুরাগীদের সঙ্গে শেয়ার করে আফ্রিদি সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখেন, ‘বৃহস্পতিবার থেকেই শরীরটা ভালো যাচ্ছিল না। খুব খারাপ বোধ করছিলাম। গায়ে খুব ব্যাথ হচ্ছিল। উপায় না দেখে করোনা পরীক্ষা করাই এবং দুর্ভাগ্যবশত রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। দ্রুত সুস্থতার জন্য তোমাদের প্রার্থনা চাইছি, ইনশা আল্লাহ।’

আফ্রিদির আগে হাইপ্রোফাইল ক্রিকেট ব্যক্তিত্ব হিসেবে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন পাকিস্তানের সাবেক ওপেনার তৌফিক উমর। যদিও পরবর্তীতে তিনিও করোনা মুক্ত হয়েছেন। সাম্প্রতিক সময়ে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছিলেন পাকিস্তানের ইংল্যান্ডগামী স্কোয়াডের ১০ জন ক্রিকেটার। যদিও পরবর্তীতে তাদের মধ্যে ৬ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন এবং শুক্রবার (৩ জুলাই) ইংল্যান্ডে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।