কুবিতে বছর পেরিয়েও আসছে না স্নাতকোত্তর পরীক্ষার ফলাফল

প্রকাশিতঃ ১০:৫৫ অপরাহ্ণ, রবি, ১২ জুলাই ২০

জুবায়ের, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় : স্নাতকোত্তর ফাইনাল পরীক্ষা শেষ হল গত বছরের এপ্রিলে। তবে ফলাফল প্রকাশ পাইনি এখনো। এতে চাকরির আবেদনসহ গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজে স্নাতকোত্তর সনদপত্র কাজে লাগাতে পারছে না শিক্ষার্থীরা। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে শিক্ষার্থীরা। চিত্রটা কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ইংরেজি বিভাগের সপ্তম ব্যাচের।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনে চূড়ান্ত পরীক্ষার দশ সপ্তাহের মধ্যে ফল প্রকাশের কথা সেখানে পরীক্ষা কমিটির দায়িত্বে অবহেলা, উদাসীনতা এবং খামখেয়ালিপনার কারণে দীর্ঘ সময় ধরে ফল প্রকাশ না হওয়ায় তাদের সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইংরেজী বিভাগের ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা ২০১৩ সালে স্নাতক শুরু করলেও তা ২০১৮ সালের শুরুর দিকে শেষ হয়। এরপর স্নাতকোত্তরে ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হন ৩৬ জন শিক্ষার্থী। ২০১৯ সালের ২৪ এপ্রিল স্নাতকোত্তর ২য় সেমিস্টারে ফাইনাল পরীক্ষা শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি ৭ম ব্যাচের এই শিক্ষার্থীরা। ফাইনাল পরীক্ষা শেষে একই বছরের জুন মাসে ভাইভার মাধ্যমে সকল একাডেমিক কার্যক্রম শেষ হয় তাদের।

তবে সকল কার্যক্রম শেষ হওয়ার এক বছর পেরিয়ে গেলেও স্নাতকোত্তরের ফলাফল এখনো প্রকাশ হয়নি। এতে করে শিক্ষার্থীরা চাকরির আবেদনসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ কাজে স্নাতকোত্তরের সনদপত্রের প্রয়োজন হলেও তারা তা তুলতে পারছেন না। স্নাতক ও স্নাতকোত্তর মিলিয়ে প্রায় ২ বছর ৭ মাসের সেশনজটে পড়েছে এই শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, রেজাল্টের জন্য পরীক্ষা কমিটির সভাপতিকে অবহিত করলে উল্টো তিনি বিরক্তি প্রকাশ করেন। দীর্ঘদিন ধরে রেজাল্ট না পাওয়া এবং পরীক্ষা কমিটির সভাপতির এমন আচরণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

ব্যাচটির শিক্ষার্থী মাজহারুল ইসলাম হানিফ পরীক্ষা কমিটির কার্যক্রমে ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, ‘২০১৩ সালে (৭ম ব্যাচ) ইংরেজি বিভাগে ভর্তি হলাম। ২০১৮ সালের প্রথমদিকে অনার্স ফাইনাল, ২০১৯ সালের মার্চে মাস্টার্সের ফাইনাল শুরু করে জুনে ভাইভার মাধ্যমে একাডেমিক কার্যক্রম শেষ করলাম। কিন্তু বছর পেরিয়ে গেলেও রেজাল্ট আর আসলো না। কবে আসে তারও কোন খবর নাই। উল্টা রেজাল্টের জন্য পরীক্ষা কমিটির সভাপতিকে কল দিলেও উনি সম্রাট আকবরের ভাব ধরে, বিরক্তিবোধ করে। অমানবিকতার একটা সীমা থাকে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা দপ্তরের তথ্যমতে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৫তম একাডেমিক কাউন্সিলের সংশোধিত আইনে একটি সেমিস্টার শেষ করতে শিক্ষার্থীদের সময় লাগবে ২৬ সপ্তাহ বা ছয় মাস, যার মধ্যে ১৩ সপ্তাহ ক্লাস হবে, চূড়ান্ত পরীক্ষা প্রস্তুতির জন্য থাকবে দুই সপ্তাহ আর চূড়ান্ত পরীক্ষা হবে তিন সপ্তাহে। আইন অনুযায়ী পরীক্ষা-পরবর্তী আট সপ্তাহের মধ্যে ফল প্রকাশ করতে হবে। তবে ফাইনাল পরীক্ষার ক্ষেত্রে ১০ সপ্তাহের মধ্যে ফলাফল প্রকাশ করার নিয়ম রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা দপ্তরের তথ্যমতে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৫তম একাডেমিক কাউন্সিলের সংশোধিত আইনে একটি সেমিস্টার শেষ করতে শিক্ষার্থীদের সময় লাগবে ২৬ সপ্তাহ বা ছয় মাস, যার মধ্যে ১৩ সপ্তাহ ক্লাস হবে, চূড়ান্ত পরীক্ষা প্রস্তুতির জন্য থাকবে দুই সপ্তাহ আর চূড়ান্ত পরীক্ষা হবে তিন সপ্তাহে। আইন অনুযায়ী পরীক্ষা-পরবর্তী আট সপ্তাহের মধ্যে ফল প্রকাশ করতে হবে। তবে ফাইনাল পরীক্ষার ক্ষেত্রে ১০ সপ্তাহের মধ্যে ফলাফল প্রকাশ করার নিয়ম রয়েছে।

কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনে ১০ সপ্তাহের মধ্যে সেমিস্টার পরীক্ষার ফল প্রকাশ করার কথা থাকলেও ইংরেজি বিভাগের ভুক্তভোগী ব্যাচের শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে সেই নিয়ম মানা হয়নি। যা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের লঙ্ঘন বলে দাবি করছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা। তারা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনে সেমিস্টার ফাইনালের আট সপ্তাহ পর ফলাফল প্রকাশের কথা থাকলেও আমাদের ক্ষেত্রে তা মানা হয়নি। এতে করে আমরা চাকরির বাজারে যেতে পারছিনা। অধিকাংশ বেসরকারি চাকরির ক্ষেত্রে স্নাতকোত্তর এর সার্টিফিকেট প্রয়োজন হয়। কিন্তু সার্টিফিকেট না থাকায় আমরা আগে থেকেই বাদ পড়ে যাচ্ছি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অনুরোধ থাকবে এবিষয়টা গুরুত্ব দিয়ে ফল প্রকাশ করার।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ নূরল করিম চৌধুরী বলেন, করোনার কারণে আমাদের ফলাফল প্রকাশ করতে কোনো সমস্যা নেই। সীমিত আকারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম চলছে। যদি শিক্ষকরা ফলাফল তৈরি করে দেয় আমরা প্রকাশ করবো। ইংরেজি বিভাগের ফলাফল প্রকাশের বিষয়ে তিনি জানান, বিভাগ থেকে আমার সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে। ফলাফল তৈরির কিছু কাজ বাকি রয়েছে। তা শেষ করে ফলাফল পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ে জমা দিবে বলে জানানো হয় বিভাগ থেকে।

দশ সপ্তাহের ভিতর ফল দেয়ার কথা থাকলেও কেন এক বছরের বেশি সময় লাগছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে এ ব্যাচের পরীক্ষা কমিটির প্রধান ও বিভাগটির সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী রেজওয়ান তালুকদার এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘এ বিষয়ের উত্তরটা তো আমি আপনার কাছে দিব না। এটা বিভাগের বিষয়, একাডেমিক বিষয়। বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভাগের সাথে আমার কথা হবে।’

দায়িত্ব অবহেলার বিষয়ে প্রতিবেদনের জন্য মন্তব্য প্রয়োজন জানালে তিনি সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘সাংবাদিক হিসেবে তথ্য সংগ্রহ করা এটা আপনার কাজ। আপনাকে উত্তর দেয়া আমার কাজ না। আমার তো বাধ্যবাধকতা নাই সাংবাদিককে উত্তর দেয়ার।’ এছাড়া তিনি ফোনে না কথা বলে অফিস যখন খুলবে অফিসে এসে কথা বলতে বলেন।

ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. বনানী বিশ্বাস বলেন, ‘আমি বিভাগীয় প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পরে দেখি পরীক্ষার এক বছর পরও শিক্ষার্থীরা ফলাফল পাচ্ছে না। অসহায়ের মত ঘুরছে আমার শিক্ষার্থীরা। যতটুকু সম্ভব আমি শীঘ্রই ফলাফল প্রকাশ করতে পরীক্ষা কমিটিকে অনুরোধ করেছি।’

পরীক্ষা কমিটির খামখেয়ালিপনার বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মো: আবু তাহের বলেন, ‘১ বছর ধরে রেজাল্ট আটকে রাখা এটা তো এক ধরণের ক্রাইম। আমি বিষয়টা জানার পর উপাচার্যের সাথে কথা বলে বিভাগীয় প্রধানকে বলেছি, ১৫ দিনের মধ্যে রেজাল্ট দিতে। আর তাছাড়া আমাদের অফিসের কার্যক্রম তো চলছে। এ বন্ধের ভিতরেই ঐ একই বিভাগের আমরা রেজাল্ট পাবলিশ করেছি।’

সময় জার্নাল/আরইউটি

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।