কুড়িগ্রামে খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকটে বানভাসী মানুষ

প্রকাশিতঃ ৫:১৪ অপরাহ্ণ, শুক্র, ১৭ জুলাই ২০

রেজাউল করিম রেজা, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামে বন্যার পানি কমলেও বিপদসীমার উপর নদনদীর পানি। এতে খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকটে বানভাসী মানুষেরা। ব্রহ্মপুত্র ও ধরলার পানি বিপদসীমার অনেক উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় জেলার সার্বিক বন্যা ভয়াবহ রুপ নিয়েছে। ঘর-বাড়ি ও নলকুপ তলিয়ে থাকায় নদ-নদীর অববাহিকার আড়াই শতাধিক চর ও নিম্নাঞ্চলের দুই লক্ষাধিক মানুষ বিশুদ্ধ খাবার পানি ও চরম খাদ্য সংকটে পড়েছে। তীব্র হচ্ছে গবাদি পশু ও শিশু খাদ্যের সংকটও। এ অবস্থায় সামান্য ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত থাকলেও তা সবার ভাগ্যে জুটছে না। চোখে পড়ছে না কোন বেসরকারি এনজিওর ত্রাণ তৎপরতা। বন্যার পানির তোড়ে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলা এলজিইডি’র শহর রক্ষা বাঁধের ১০০ মিটার ভেঙ্গে নতুন করে ১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে পড়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ক্ষতিগ্রস্থ ইউনিয়ন ৫৬টি, গ্রাম ৪৭৫টি, রাস্তা ৩৭ কিমি. এবং বাঁধ ৩২ কিমি. ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুল ইসলাম জানান, কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে বিপদসীমার ৯১ সেন্টিমিটার, নুনখাওয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ৮১ সেন্টিমিটার ও ধরলার পানি সেতু পয়েন্টে বিপদসীমার ৬২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

উলিপুরের বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের মশালের চরের জয়নাল, তৈয়ব এবং মোবারক বলেন, ছেলে-মেয়ে, ছাগল-ভেড়া নিয়ে নৌকায় অবস্থান করছি। প্রায় ২১ দিন ধরে ঘর-বাড়ি পানিতে তলিয়ে থাকলেও এখন পর্যন্ত কোন খাদ্য সহায়তা পাইনি।

মশালের চরের ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিন ও ভিতরবন্দ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিনুল হক খন্দকার বাচ্চু বলেন, সামান্য কিছু চাল বরাদ্দ পেয়েছি তা হয়তো অল্প সংখ্যক পরিবারকে দেয়া সম্ভব হবে। এই মুহুর্তে এই মানুষগুলোর শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানি জরুরি হয়ে পড়েছে।

কুড়িগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান জানান, বন্যা কবলিতদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে কুড়িগ্রামের ৯ উপজেলায় ৮৫টি মেডিকেল টিম কাজ করছে। গত ২০ জুন থেকে এ পর্যন্ত বন্যার পানিতে ডুবে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ১১ জনই শিশু।

কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক মো. রেজাউল করিম জানান, সরকারিভাবে বন্যা দুর্গতদের জন্য ১৬০ মেট্রিক টন চাল ও ৮ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে এবং তা বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।