গোপালগঞ্জে বিদেশ ফেরত ২৪ জন কোয়ারেন্টাইনে

প্রকাশিতঃ ৬:০০ অপরাহ্ণ, রবি, ১৫ মার্চ ২০

দুলাল বিশ্বাস, গোপালগঞ্জ : জেলায় বিদেশ ফেরত নারীসহ ২৪ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বুধবার থেকে তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। স্বাস্থ্য বিভাগের মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা তাদের নিবিড় পর্যবেক্ষনে রেখেছেন।

গোপালগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদের সাথে রোববার দুপুরে কথা বললে তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি আরও বলেন, মাঠ পর্যায় স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা চেন অব কমান্ডের মাধম্যে কাজ করছে। বিদেশ ফেরত লোকদের সন্ধান ও করোনাভাইরাস সনাক্ত করার জন্য মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন স্বাস্থ্য সহকারিরা। তাদের তথ্য অনুযায়ী সেখানে তাৎক্ষনিকভাবে যাচ্ছেন সহকারি স্বাস্থ্য পরিদর্শকেরা। সহকারি স্বাস্থ্য পরিদর্শকদের রির্পোট অনুযায়ী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও মেডিকেল অফিসার ডিজিস কন্টোল ওই সব এলাকায় গিয়ে পরার্মশ ও রোগ নির্ণয়ের জন্য সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছেন।

গোপালগঞ্জের সিভিল সাজর্ন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ভারত, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, চীন, ইতালী, সৌদিআরব ও দক্ষিন কোরিয়া থেকে সম্প্রতি ওই ২৪ ব্যক্তি দেশে ফিরেছেন। এদের সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে ।

এদের মধ্যে গোপালগঞ্জ টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় ৩ জন, কোটালীপাড়ায় ৩ জন, কাশিয়ানীতে ১৬ জন ও মুকসুদপুর উপজেলায় ২ জন।

হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তিরা হলেন, টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় ভারত থেকে আসা ডুমুরিয়া ইউনিয়নের ডুমুরিয়া গ্রামের তুষার কান্তি হালদার , সৌদি আরব থেকে আসা পাটগাতি ইউনিয়নের গিমাডাঙ্গা গ্রামের আলি শেখের ছেলে ইমরান, সিংগাপুর থেকে আসা গোপালপুর ইউনিয়নের পলান বিশ্বাসের ছেলে ভজন বিশ্বাস।

কোটালিপাড়ার রামশীল ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের ইতালি ফেরত দীপক হালদার , সিকির বাজার গ্রামের মালয়েশিয়া ফেরত দাউদ শেখ ও উনশিয়া গ্রামের সাইদুল হাজরা ।
মুকসুদপুরের ভাবরাসুর ইউনিয়রে ইতালি ফেরত তহিদুজ্জামান ও উজানি ইউনয়নের তাপস ।

কাশিয়ানি উপজেলার মোট ১৬ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে । এদের মধ্যে রাজপাট ইউনিয়নের সৌদি থেকে আসা জসিম, গোয়ালা গ্রামের সোহেল মোল্লা , ফুকরা ইউনিয়নের দক্ষিন কোরিয়া ফেরত জসিম ও জর্ডান ফেরত সালমা বেগম, ফলসি গ্রামের জহির শেখ এবং বাধন সমাদ্দার ও নিজামকান্দি গ্রামের আলমগীর ফকিরের নাম পাওয়া গেছে ।

কোটালীপাড়া উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সুশান্ত মন্ডল জানান, আমরা প্রতিটি গ্রামে গ্রামে গিয়ে বিদেশ ফেরত আমাদের মাঠ কর্মীদের নিয়ে প্রতিনিয়ত কাজ করছি । বিদেশ ফেরত কোন লোকের তথ্য পেলে সেখানে গিয়ে আমরা তাকে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখে নিবিড় পর্যবেক্ষর করছি।

কাশিয়ানীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাব্বির আহমেদ বলেন, ২৭ ফেব্রুয়ারী থেকে উপজেলায় ১৬ জন বিদেশ ফেরত ব্যক্তিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে । আমাদের ধারণা এরমধ্যে এরা সবাই সুস্থ আছেন। তারপর সচেতনতার জন্য আমরা এদের নিবির পর্যবেক্ষণে রেখেছি ।

সময় জার্নাল/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ