গৌরব ও ঐতিহ্যের ২০ বছরে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশিতঃ ৯:২৬ অপরাহ্ণ, বুধ, ১৫ জুলাই ২০

শেকৃবি প্রতিনিধি : উপমহাদেশের প্রাচীনতম কৃষি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। কৃষি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে যাত্রা শুরু করে ১৯৩৮ সালে। শেরে বাংলা একে ফজলুল হকের হাতে প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানটি গত শতকের চল্লিশের দশক থেকে তৈরি করেছে উপমহাদেশের স্বনামধন্য শত শত কৃষিবিদ। বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে এটি প্রতিষ্ঠিত হয় ২০০১ সালের ১৫ জুলাই। আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি মিলিয়ে মোট শিক্ষার্থী সংখ্যা ৪৮০৪ জন। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে চারটি অনুষদ ও একটি ইনস্টিটিউটের অধীনে মোট ৩৫টি বিভাগ রয়েছে। মোট ৩২২ জন শিক্ষক ও গবেষক সংশ্লিষ্ট গবেষণায় নিয়োজিত আছেন। শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে পাঁচটি ছাত্রাবাস।

শিক্ষক ও ছাত্ররা কেন্দ্রীয় গবেষণার মাধ্যমে গবেষণা করে নতুন নতুন ফসলের জাত উদ্ভাবন করে যাচ্ছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক উচ্চ ফলনশীল ধান বিআর-৩, বিআর-৪, বিআর-১০, বিআর-১১, বি আর-১৪, বি আর-১৯, বিআর-২৩ এর মত জাত আবিষ্কারের মাধ্যমে শুধু নিজ দেশে নয় ভারত, নেপাল, মিয়ানমার, ভিয়েতনাম, পশ্চিম আফ্রিকায় স্বীকৃতি পেয়েছে ও সাড়া ফেলেছে।

প্রতিষ্ঠানটির গবেষণাকর্মগুলোর মধ্যে আরও রয়েছে ক্যান্সার প্রতিরোধী সবজি সাউ টমাটিলো-১, সাউ টমাটিলো-২; সরিষার উন্নত জাত সাউ সরিষা-১, সাউ সরিষা-২, সাউ সরিষা-৩, ভুট্টার উচ্চফলনশীল জাত সাউ হাইব্রিড ভুট্টা-১, সাউ হাইব্রিড ভুট্টা-২, ভিনদেশি ফুলের পরিবেশ সহিষ্ণু নতুন জাত বঙ্গবন্ধু-১ ও বঙ্গবন্ধু-২। একই গাছে আলু ও টমেটোর জাত পমেটো, ভিনদেশি সবজি ব্রাসেলস স্প্রাউট, উন্নত মানের জাত সলুক, রসুনের বিকল্প বিডি নিরা ও প্রাণীদেহে অনুজীব ঘটিত রোগ বিষয়ক সফল গবেষণা অন্যতম। কাজী পেয়ারার জনক ডঃ কাজী এম বদরুদ্দোজা সহ আরো অনেক গুনী কৃষিবিদ এ প্রতিষ্ঠানের ছাত্র।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যদের শুভেচ্ছা জানিয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ বলেন, “উন্নত শিক্ষা, কোর্স কারিকুলাম ও গবেষণার একটি আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পথে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে বর্তমানে ৩৯২ কোটি ৬৮ লাখ টাকার প্রকল্প কাজ এগিয়ে চলছে। ক্যাম্পাসে বিভিন্ন অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ চলমান রয়েছে। এছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাথে প্রকল্প চুক্তি হচ্ছে। ফলে বিভিন্ন দেশের সাথে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের নেটওয়ার্ক তৈরি হচ্ছে। গবেষণার কাজ সম্পন্ন হচ্ছে।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে উপাচার্য আরো বলেন, “করোনা মহামারির কারণে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে কোন অনুষ্ঠানমালা না থাকলেও মুজিববর্ষ চলছে এবং প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাও আছে। তাই আমরা ক্যাম্পাসে শুধুমাত্র বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করছি।”

সময় জার্নাল/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।