‘জবি উপাচার্যের বক্তব্য অবমাননাকর’

প্রকাশিতঃ ৫:২৩ অপরাহ্ণ, শুক্র, ১২ জুন ২০

ক্যাম্পাস ডেস্ক : জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়া সংকট নিরসনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে উপাচার্যের অবমাননাকর বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক তানজিম সাকিব। এ ধরনের বক্তব্যের মাধ্যমে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীদের অপমান করা হয়েছে এবং এ ধরনের চরম ধৃষ্টতামূলক বক্তব্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তিকে হেয় করেছে।

উপাচার্য তার বক্তব্যে বলেন, “তোমরা এতো মিসকিন, নিজেদের আত্মমর্যাদা পর্যন্ত নেই। আমি কি বিজ্ঞাপন দিয়েছিলাম যে, দরিদ্রদের ভর্তি করা হয়। এটা কি দরিদ্রদের এতিমখানা, মাদ্রাসা?”। এই ধরনের বক্তব্য কোনোভাবেই শিক্ষকসুলভ আচরণ হতে পারে না। শিক্ষার্থীদের প্রতি এই ধরনের অপমানসূচক বক্তব্যের মধ্য দিয়ে প্রশাসনের সর্বোচ্চ ব্যক্তির দায়িত্বহীনতাই প্রকাশ পেয়েছে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থ জোগায় দেশের সাধারণ মানুষ। আর সেই শিক্ষার্থীরা জনগণের সন্তান। তাই তাদের প্রতি বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করা প্রশাসনের দায়িত্ব। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত প্রতিটি শিক্ষার্থীর আবাসন ব্যাবস্থা নিশ্চিত করবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কিন্তু জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কখনই শিক্ষার্থীদের বাসস্থান, খাদ্য কিংবা চিকিৎসা ব্যাবস্থা নিয়ে ভাবেননি। প্রতিষ্ঠার ১৫ বছর পেরিয়ে গেলেও শিক্ষার্থীরা হলের দেখা পায় নি। আবাসন সুবিধা বঞ্চিত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মেস মালিকদের চাপের মুখে অসহায় বোধ করছে। আর প্রশাসন পূর্বের ন্যায় দায়সারা বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছে, কার্যকর কোন ব্যাবস্থা গ্রহণ করছে না। এমতাবস্থায় এই ভয়াবহ পরিস্থিতি মোকাবিলার দায় প্রশাসনের ওপরেই বর্তায়। অতিদ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিয়াশীল সংগঠন সমূহের নেতৃবৃন্দের দাবী মেনে নিয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য সম্পূরক শিক্ষা বৃত্তির ব্যাবস্থা করতে হবে এবং উপাচার্য ড. মীজানুর রহমানকে তার বক্তব্য প্রত্যাহার করতে হবে।

সমজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট নেতা বিবৃতিতে, উপাচার্য ড. মীজানুর রহমানের এ ধরনের অপমানজনক বক্তব্যের ধৃষ্টতা দেখানোর দুঃসাহসের বিরুদ্ধে শক্তিশালী প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান জানান।

সময় জার্নাল/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।