টিসিবির পণ্য উপজেলাতেও বিক্রির নির্দেশ

প্রকাশিতঃ ৩:৫২ অপরাহ্ণ, বুধ, ৩ জুন ২০

সিটি করপোরেশন ও অল্পকিছু পৌরসভার মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে উপজেলা পর্যায়েও ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রির ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সচিব ও টিসিবি চেয়ারম্যানকে আগামী সাত দিনের মধ্যে এই নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি আদালতের নির্দেশনার পর কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা আগামী ১১ জুন হাইকোর্টকে লিখিত আকারে জানাতে বলা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে বুধবার (৩ জুন) বিচারপতি জেবিএম হাসানের নেতৃত্বাধীন ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব আদেশ দেন। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মো. হুমায়ন কবির পল্লব।

গত ১৬ মে করোনা পরিস্থিতির মধ্যে সিটি করপোরেশন এবং পৌরসভার বাইরেও দেশের প্রতিটি উপজেলায় টিসিবির মাধ্যমে কম দামে পণ্য বিক্রির নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়। মানবাধিকার সংগঠন ল’ অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশনের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. হুমায়ন কবির পল্লব এ রিট দায়ের করেন। রিটে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সচিব, ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) চেয়ারম্যানকে বিবাদী করা হয়।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ৩০ এপ্রিল এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের একটি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছিল। ওই নোটিশের কোনও সাড়া না পেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয় বলে জানিয়েছেন রিটকারী আইনজীবী।

নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছিল, ‘টিসিবি পণ্য শুধুমাত্র সিটি করপোরেশন এবং কিছু কিছু পৌরসভা এলাকার মধ্যে সীমিত। যে কারণে এর সুফল সারাদেশের নিম্নবিত্ত এবং নিম্ন-মধ্যবিত্ত সাধারণ মানুষ ভোগ করতে পারছেন না। প্রান্তিক এই জনগোষ্ঠী এ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কিন্তু কম দামে খাদ্য দ্রব্য কেনার অধিকার শুধুমাত্র সিটি করপোরেশন এবং পৌরসভা এলাকার মধ্যকার মানুষের নয়, বাংলাদেশের যেকোনও প্রান্তে বসবাসকারী একজন সাধারণ মানুষেরও সে অধিকার রয়েছে।’

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।