দ্বিতীয়দফা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ঘটছে

প্রকাশিতঃ ১১:২৩ পূর্বাহ্ণ, বৃহঃ, ১০ সেপ্টেম্বর ২০

করোনা আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হওয়ার কিছুদিন পর আবার অসুস্থ হওয়া বা তৃতীয় দফায় করোনা পজিটিভ হওয়ার ঘটনা ঘটছে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেন, কারও শরীরে ভাইরাসের কিছু অংশ থেকে গেলে আবারও আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। সেই সঙ্গে নতুন করে ডায়াবেটিস বা হৃদরোগের ঝুঁকিও তৈরি হচ্ছে। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে রোগের ধরন অনুযায়ী চিকিৎসা নেয়ার পরামর্শ দিলেন তারা।

কোভিড-নাইন্টিনে আক্রান্ত হয়ে গেল ছয় মাসে প্রায় আড়াই লাখ রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। কিন্তু সুস্থ হওয়ার পরও অনেক করোনা রোগীর ভোগান্তি দূর হচ্ছে না। এখন দেখা দিচ্ছে করোনা পরবর্তী দীর্ঘমেয়াদী নানা সমস্যা। ভুক্তভোগীরা জানান, করোনা টেস্টে নেগেটিভ হওয়ার এক থেকে দুই মাস পর আবারো পজিটিভ হচ্ছেন। দীর্ঘমেয়াদী শারীরিক দুর্বলতা, জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছেন আবার কারও আবার হৃদরোগের সমস্যা দেখা দিচ্ছে।

করোনা থেকে সুস্থ হয়ে আবার অসুস্থ হওয়া একজন জানান,  একমাসে দুইবার করোনায় আক্রান্ত হয়েছি এবং যখন মেডিসিন ডাক্তারের কাছে যাই তখন জানতে পারি, এরই মধ্যে দুইবার মাইল্ড স্ট্রোক হয়ে গেছে। আরেক জন জানান, অল্পতে হাঁপিয়ে যাই, সারাক্ষণ ক্লান্ত বোধ করি এবং ঘুমের মধ্যে নিশ্বাস বন্ধ হয়ে আসে। শরীরের ভেতরে বড় ধরনের কোনও সমস্যা হয়েছে কিনা তা সবসময় নিজেকে ভোগায়।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী জানান, একমাস থেকে দেড়-মাস পার হয়ে গেলেও করোনা পজিটিভ আসে, কারণ করোনাভাইরাসের অবশিষ্ট কিছু অংশ শরীরে থেকে যায়। করোনাভাইরাসে পজিটিভ হলে শতভাগ পজিটিভ আর যদি নেগেটিভ হয় তা হলে শতভাগ। এটা ভাবার দরকার নেই কারণ কখনো কখনো ৬০ ভাগের কম রেজাল্ট দেয়।

তিনি আরও বলেন, করোনার আগে অনেকের হাই প্রেশার, ডায়াবেটিস ছিল না, কিন্তু করোনা হওয়ার পর এই সব রোগে আক্রান্ত হচ্ছে কারণ শরীরের প্রধান অঙ্গ প্রত্যঙ্গ প্রচণ্ড চাপ হয় যার ফলে রোগ বেড়ে যায় এবং নতুন রোগে আক্রান্ত হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় মেডিসিন বিশেষজ্ঞ  ডা. শামীম আহমেদ জানান, আমাদের শরীরের যখন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি থাকে তখন রোগ সহজে আক্রান্ত করতে পারে না, আবার শরীরে প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গেলে রোগ আমাদের সহজে আক্রান্ত করে ফেলে। তিনি আরও বলেন, কিছু কিছু ক্ষেত্রে ফুসফুসে দাগ থাকে এর জন্য দীর্ঘ মেয়াদী  চিকিৎসা নিতে হয়।

চিকিৎসকেরা বলেন, শরীর থেকে ভাইরাস সম্পূর্ণ নির্মূল না হওয়ায় আবারও করোনা পজিটিভ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং পুরোপুরি সুস্থ হতে লম্বা সময় লাগবে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়ার পাশাপাশি করোনার কারণে আগের রোগের মাত্রা বাড়ছে আবার নতুন করে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ ও ফুসফুসের সমস্যা দেখা দিচ্ছে বলেও জানান স্বাস্থ্যবিদরা।

শরীরের ইউমিনিটি বাড়ায় এমন খাদ্যাভ্যাস গ্রহণ করতে হবে। তবে করোনা পরবর্তী সময়ে অসুস্থতার মাত্রা বেশি হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়ার পরামর্শ দিলেন এই দুই বিশেষজ্ঞ।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।