নিরাময় অযোগ্য রোগীদের যন্ত্রনাহীন জীবন নিশ্চিতেই প্যালিয়েটিভ সেবা

প্রকাশিতঃ ৭:২৩ অপরাহ্ণ, সোম, ২ ডিসেম্বর ১৯

নিরাময় অযোগ্য রোগীদের ব্যথামুক্ত যন্ত্রনাহীন জীবন নিশ্চিত করতে প্যালিয়েটিভ সেবার উন্নয়ন ও বিস্তৃতিতে সহায়তা অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া। 
সোমবার (২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় শাহবাগের জাতীয় যাদুঘরের নলিনীকান্ত ভট্টশালী মিলনায়তনে বিশ্ব ‘হসপিস এন্ড প্যালিয়েটিভ কেয়ার দিবস’ উপলক্ষে প্যালিয়েটিভ কেয়ার সোসাইটি অব বাংলাদেশ-এর উদ্যোগে আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। প্যালিয়েটিভ কেয়ার সোসাইটি অব বাংলাদেশ আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, যে সকল রোগীর রোগ নিরাময় যোগ্য নয়, তাঁদের তাদের জন্য প্যালেয়েটিভ কেয়ার সেবা। যাতে আমৃত্যু তাঁরা ব্যথামুক্ত যন্ত্রনাহীন কাটাতে পারেন। এসকল রোগীদের সেবাদানের মহতী উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে প্যালিয়েটিভ সেবা চালু করা হয়েছে। এ বিষয়ে এমডি কোর্স চালু করা হয়েছে। রাজধানীর গুলশানের কড়াইল বস্তি এবং নারায়ণগঞ্জেও এই সেবা চালু করা হয়েছে। প্যালিয়েটিভ সেবার পরিধি বাড়াতে ও উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন সব সময় সহায়তা দিয়ে আসছে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া। সোসাইটির সভাপতি সৈয়দ সাদেক মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে এসময় আরও বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের  প্যালিয়েটিভ কেয়ার বিভাগের প্রাক্তন চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. নিজামউদ্দীন আহমদ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপাক ডা. মাকসুদ আলম।
রুবায়েত ও লাবনি নামের দুই পাপেটের সঞ্চালনায় আলোচনা সভা শেষে ছিল মনোজ্ঞ সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এছাড়া মিলনায়তনে প্যালিয়েটিভ রোগীদের আলোকচিত্র প্রদর্শন করা হয়।
অন্য বক্তারা বলেন, যেসব দেশে প্যালিয়েটিভ কেয়ার সেবা সমৃদ্ধি লাভ করেছে সেসব দেশে বাড়িতে মৃত্যুর হার অনেক বেশি। কেননা প্যালিয়েটিভ কেয়ার সেবার মাধ্যমে যন্ত্রনাহীন, ভোগান্তিমুক্ত মৃত্যু সম্ভব। বর্তমানে দেশের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে প্যালিয়েটিভ কেয়ার বিভাগের মাধ্যমে এ ধরণের সেবা দেয়া অব্যাহত রয়েছে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ