নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে পুলিশ-গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৩

প্রকাশিতঃ ১০:০৭ অপরাহ্ণ, সোম, ২৭ এপ্রিল ২০

খাদেমুল মোরসালিন শাকীর, নীলফামারী : জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলায় ঈদগাহ মাঠ নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষার্থে বালু দিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে বাধ নির্মানে বাঁধা দেয়াকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে গ্রামবাসীর সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সোমবার (২৭ এপ্রিল) বেলা ১২ টার দিকে ঘটনাটি ঘটে উপজেলার পুটিমারী ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের হাটখোলা গ্রামে।

এলাকাবাসী জানায়, গ্রামের পাশ দিয়ে যাওয়া চারালকাটা নদী খননে গ্রামের ঈদগাহ মাঠটি ভাঙ্গনের কবলে পড়ে। ফলে গ্রামবাসী স্বেচ্ছায় ঈদগাহ মাঠ রক্ষার্থে বালির বাঁধ নির্মাণেল কাজ শুরু করে। এ অবস্থায় ওই গ্রামের মৃত ঈসা উদ্দিনের ছেলে তছলিম উদ্দিন ঈদগাহ মাঠের জায়গায় তার নিজের দাবি করে গ্রামবাসীকে বালুর বাঁধ নির্মাণে বাঁধা দিয়ে তার লোকজন নিয়ে ২১ এপ্রিল গ্রামের আলমগীর হোসেনসহ চারজনকে মারপিট করে। আহতরা হাসপাতালে ভর্তি হয়। এ ঘটনায় ২২ এপ্রিল তছলিম উদ্দিনসহ তার বাহিনীর বিরুদ্ধে আলমগীর হোসেন বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন (মামলা নম্বর ৭)। অপর দিকে তছলিম উদ্দিনও পাল্টা মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। তছলিম উদ্দিনের মামলার তদন্তকারী এসআই আব্দুল ওহাব।

সোমবার সকালে যখন এলাকাবাসী পুনরায় ঈদগাহ মাঠের সামনে স্বেচ্ছায় বালুর বাঁধের কাজ করছিল সে সময় তছলিম উদ্দিন এসআই আব্দুল ওয়াবকে ফোন করে ঘটনাস্থলে ডেকে নিয়ে আসে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ উক্ত এসআই ঘটনাস্থলে এসেই মানুষজনকে লাঠি পেটা করতে থাকে। খবর পেয়ে কিশোরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মফিজুল হকের নেতৃত্বে এক দল পুলিশ এসে গ্রামবাসীর উপর লাঠিচার্জ করতে গেলে গ্রামবাসী ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। এ অবস্থায় পুলিশের দলটি একটি বাড়িতে আশ্রয় নেয়। এরপর ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ্ মোঃ আবুল কালাম বারী পাইলট। তার সহায়তায় উপজেলা হাসপাতাল হতে এ্যাম্বুলেন্স এনে আহত ওসি (তদন্ত) ও আহত দম্পতিকে উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করান। এখান থেকে আহত ওসি (তদন্ত) কে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।

কিশোরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হারুন অর রশীদ বলেন, ঈদগাহ মাঠকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষ থানায় মামলা দিয়েছে।মামলার তদন্ত করতে গিয়ে এস আই আব্দুল ওয়াহাবের সাথে এলাকাবাসী খারাপ আচরণ করে এবং মামলার বাদী-বিবাদীরা পুলিশের সামনে মারামারি করতে থাকলে থানা পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। সেখানে কিশোরগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মফিজুল হকের উপর তারা হামলা করে।

সময় জর্নাল/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ