বাগেরহাটের শরণখোলায় পানি সংকটে হাজার হাজার পরিবার

প্রকাশিতঃ ২:০২ অপরাহ্ণ, সোম, ৪ মে ২০

এম.পলাশ, বাগেরহাট : ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের গাফেলতির কারণে বাগেহাটের শরণখোলা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় হাজার হাজার পরিবারে দীর্ঘদিন ধরে পানির জন্য হাহাকার চলছে ।তবে,প্রকল্প তদারকির দ্বায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা কর্মচারিরা তাদের কর্তব্য পালনে উধাসীন থাকায় দীর্ঘদিন ধরে এমন অবস্থা চলছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের ।

জানা গেছে, ঝড়, জ্বলোচ্ছাস ও বন্যাসহ প্রাকৃতিক নানা দুর্যোগের হাত থেকে উপকূলবাসীকে রক্ষায় ২০১৭ সালে বলেশ্বরনদী সংলগ্ন ৩৫/১ পোল্ডারের ৬৩ কি. মি. দৈর্ঘ্যর ভেরী বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু করেন (সিএইচ. ডাবব্লিউ) নামের চায়নার একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। উক্ত বাঁধ নির্মাণের পাশাপাশি পানি নিঃস্কাশনের জন্য ছোট -বড় মিলিয়ে উক্ত বাঁধে শতাধিক স্লুইজ গেইট নির্মার্ণের কাজ শুরু করেন ঠিকাদার গ্রুপ। কিন্তু তদারকির অভাবে গেইটগুলোর নির্মাণ কাজ চলছে কচ্ছপ গতিতে। আবার অনেক স্থানের নির্মান কাজ বন্ধ থাকায় এলাকাবাসীর র্দুভোগ এখন চরম পর্যায়ে পৌছেছে । পাশাপাশি কাজের ক্ষেত্রে নানা অনিয়ম হওয়ায় প্রকল্পের স্থায়ীত্ব নিয়ে শংঙ্কা দেখা দিয়েছে।

উপজেলা সদর রায়েন্দা বাজারের শহীদ মিনার এলাকার বাসিন্দা শ্রমিকলীগ নেতা মোঃ তাইজুল ইসলাম মিরাজ বলেন,আমার বাসা সংলগ্ন এলাকার একটি লেক ও পুকুরের পানি ওঠানামার জন্য বলেশ্ব নদীর সাথে ভেরী বাঁধ নির্মান কারি ঠিকাদার গ্রুপ প্রায় ৩মাস পুর্বে একটি স্লুইজ গেইট নির্মান কাজ শুরু করেন । কিছু অংশ করে ঠিকাদার ওই কাজ ফেলে রাখায় স্থানীয় সোনালী মসজিদের মুসুল্লিরা সহ পাঁচশতাধিক পরিবার এই রমজান মাসেও পানির জন্য চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন ।ঠিকাদারের গাফেলতির পাশাপাশি কাজ দেখাশুনার দ্বায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের উদাসীনতার কারনে এখন রান্না-বান্না ,ওযু-গোসলসহ দৈনন্দিন কাজের জন্য কোন পানি পাওয়া যাচ্ছে না ।

এই গেইটটির কাজ দ্রুত শেষ করে পানি ছেড়ে দেওয়ার জন্য উপজেলার (ইউ এন ও) স্যার কয়েকবার ফোন করা কর্তৃপক্ষের কোন সাড়া মেলেনি ।এছাড়া ঠিকাদার গ্রুপের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির কারনে বাঁধসহ স্লুইজগেট গুলো টেকসই না হলে শরণখোলাবাসীর দুর্ভোগ থেকেই যাবে।

অপরদিকে, রায়েন্দা বাজার শহর রক্ষা বাঁধ কমিটির আহবায়ক প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা এম এ রশিদ আকন বলেন, পানি শূন্যতা কারনে মানুষের মধ্যে চরম দুর্ভোগের সৃষ্টি হওয়ার বিষয়টি বাঁধ নির্মাণ কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের কাছে বারবার অনুরোধ করেছি কিন্তু তারা বিষয় টি আমলে না নিয়ে তাদের ইচ্ছামতো কর্মকান্ড চালাচ্ছেন । এখন পানির জন্য জনসাধারণকে সাথে নিয়ে আন্দোলন গড়ে তোলা ছাড়া বিকল্প কোন পথ দেখছিনা। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন বলেন, বিষয়টি নিয়ে চায়না ঠিকাদার কর্তৃপক্ষের সাথে শীঘ্রই বৈঠক করে পানির সংকট নিরসনের উদ্যেগ নেওয়া হবে।

অন্যদিকে প্রকল্পের তদারকি কর্মকর্তা ইঞ্জিনিয়ার মোঃ দেলোয়ার হোসেন জানান, রায়েন্দা বাজারের ওই গেটটি নির্মাণের একটু ত্রুটি হওয়ায় কাজ সাময়িক বন্ধ আছে। তবে, মসজিদের মুসুল্লি সহ স্থানীয় বাসিন্দাদের পানির দুর্ভোগ সমাধানে চেষ্টা চলছে।

সময় জার্নাল/আরএনএস/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ