বাণিজ্যিক সম্প্রচারে গেল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট

প্রকাশিতঃ ১:৩৬ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ১৬ মে ১৯

স্টাফ রিপোর্টার : মহাকাশে উৎক্ষেপণের এক বছর পর বাণিজ্যিক সম্প্রচার শুরু করেছে দেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১। স্যাটেলাইটটির সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে দেশের সরকারি ও বেসরকারি ৩১টি টেলিভিশন।

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে ২০১৮ সালের ১১ মে বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত ২টা ১৪ মিনিটে উৎক্ষেপণ করা হয় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট। স্যাটেলাইটটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেস।

উৎক্ষেপণের ছয় মাস পর ফ্রান্সের এই প্রতিষ্ঠানটির কাছ থেকে স্যাটেলাইটটির দায়িত্ব বুঝে নেয় রাষ্ট্রমালিকানাধীন কোম্পানি বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড (বিসিএসসিএল)।

বিসিএসসিএল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এক বছর পূর্তি উপলক্ষে নিরাপদ ব্যাংকিং সেবা ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেট সেবার বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইন্টারনেট ব্যান্ডউইডথের মাধ্যমে ১৯ মে এই সেবা চালু হবে।

একই দিনে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ‘ডাইরেক্ট টু হোম’ (ডিটিএইচ) সেবা চালু হবে। এতে ক্যাবল ছাড়াই অ্যানটেনার মাধ্যমে টেলিভিশন দেখা যাবে।

এ ছাড়া সরকারের পরিকল্পনায় আছে, হাতিয়া দ্বীপের ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের সরিয়ে নেওয়া হবে। সেখানে টেলি-মেডিসিন ও টেলি-এডুকেশন সেবার পরীক্ষামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করার কথা রয়েছে।

নিজস্ব স্যাটেলাইটের মালিক হতে বাংলাদেশের ২ হাজার ৭৬৫ কোটি টাকা খরচ হয়। তবে এখনো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সরকারের আয়ের খাতায় নাম লেখাতে পারেনি।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে আড়ম্বর পূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বেক্সিমকো কমিউনিকেশনস এর ‘আকাশ’ এর ডিটিএইচ সেবা উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রদান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুন্সি, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ও বেক্সিমকোর চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান, বেক্সিমকো কমিউনিকেশনসের প্রধান নির্বাহী ফয়সাল রহমানসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

বিটিসিএল সূত্র জানায়

পরীক্ষামূলক সম্প্রচারে কোনো টাকা পায়নি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট। বাণিজ্যিক সম্প্রচারেও প্রথম তিন মাস বিনা মূল্যে সেবা দিতে হবে। এ সময় কোনো ভুল-ত্রুটি থাকলে তা সংশোধন করা হবে।

স্যাটেলাইটের সঙ্গে ৩১টি বেসরকারি টেলিভিশনের পাশাপাশি যুক্ত হচ্ছে একটি বেসরকারি ব্যাংকের এটিএম বুথ সেবা। বাণিজ্যিক সম্প্রচারের প্রথম তিন মাস পর প্রতিটি টিভি চ্যানেল থেকে মাসিক ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা আয় করা যাবে বলে তিনি আশা করেন।

গত বছরের নভেম্বরে দেশের নয়টি টেলিভিশন চ্যানেল ও একটি ক্যাব্ল অপারেটর পরীক্ষামূলকভাবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ব্যবহার করে। পরীক্ষামূলক সম্প্রচারে যাওয়া তিনটি টিভি চ্যানেল জানায়, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট দিয়ে তারা বেশ শক্তিশালী ও ভালো মানের সিগন্যাল পেয়েছে।

পরীক্ষামূলক সম্প্রচারে যুক্ত ছিল ডিবিসি চ্যানেল। চ্যানেলটি বর্তমানে হংকংভিত্তিক স্যাটেলাইট অ্যাপস্টার ব্যবহার করে সম্প্রচার করছে। এতে চ্যানেলটির বছরে প্রায় ২ কোটি ১৬ লাখ টাকা খরচ হচ্ছে।

ডিবিসি চ্যানেলের সম্প্রচার প্রকৌশল বিভাগের প্রধান ও বাংলাদেশ ব্রডকাস্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক হামিদ উল্লাহ বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট দিয়ে ট্রান্সমিশনের পর সিগন্যালের শক্তি ও মান নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।

স্যাটেলাইটটি বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করা গেলে প্রচুর টাকা দেশেই থাকবে, যা বিদেশি স্যাটেলাইটকে দিতে হয়। তবে ক্যাবল অপারেটর পর্যায়ে বিতরণ নিশ্চিত করতে স্যাটেলাইট প্রতিষ্ঠানকে জোর দিতে হবে।

ঢা/এমএম

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ