বাসা যখন ইউনিভার্সিটি

প্রকাশিতঃ ৮:৫৪ অপরাহ্ণ, সোম, ২৭ জুলাই ২০

ইসমাম হোসেন

মহামারী করোনার কারণে বিশ্বের প্রায় সব দেশের শিক্ষাকার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্বের প্রতিটি দেশের সরকার স্কুল, কলেজ, ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের রক্ষা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য ক্যাম্পাস বন্ধ করে দেয়। আমাদের দেশের সরকারও সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়। আমাদের ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিও বন্ধ আছে।

বাংলাদেশে মার্চ মাসের ৮ তারিখে প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হবার পর ১৬ই মার্চ সরকার ঘোষণা দেয়, ১৭ই মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত স্কুল-কলেজসহ সব ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

ছুটি পেয়ে শিক্ষার্থীরা যার যার বাড়িতে, শহরে, কিংবা গ্রামে অবস্থান করছে। করোনা ভাইরাস বেড়ে যাওয়ায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়তে থাকে। এমতাবস্থায় শিক্ষাকার্যক্রমে মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এই কারণে সরকার এবং শিক্ষামন্ত্রণালয় প্রাথমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ে অনলাইনে ক্লাস পরিচালনা শুরু করে। শিক্ষাবান্ধব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং শিক্ষামন্ত্রীর সরাসরি তত্ত্বাবধানে “আমার ঘরে – আমার স্কুল” প্রোগ্রামের আওতায় সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে এই অনলাইনে ক্লাস সরাসরি পরিচালনা শুরু করে।

এই পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অনলাইনে ক্লাস পরিচালনা করার জন্য প্রজ্ঞাপন জারি করে। ইউজিসির প্রজ্ঞাপন দেখে আমাদের ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিও ১৫ই এপ্রিল থেকে জুম অ্যাপসের মাধ্যমে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া শুরু করে। এই অনলাইন ক্লাসের মাধ্যমে আমরা আমাদের পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারছি বাড়ি থেকেই। এখন এই করোনা ভাইরাসের জন্য আমাদের বাড়ি হচ্ছে আমাদের ইউনিভার্সিটি।

লেখক : শিক্ষার্থী, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।