ভারতের পাঞ্জাবে নাগরিকত্ব আইন বাতিলের প্রস্তাব পাশ

প্রকাশিতঃ ১১:০২ পূর্বাহ্ণ, শনি, ১৮ জানুয়ারি ২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কেরালার পর এবার ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যের বিধানসভায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) বাতিলের প্রস্তাব পাস হয়েছে। কেরালার পর দ্বিতীয় রাজ্য হিসেবে এই আইন রাজ্যে কার্যকর না করার সিদ্ধান্ত নিল পাঞ্জাব।

শুক্রবার (১৮ জানুয়ারি) মন্ত্রী ব্রহ্ম মহিন্দ্রা বিধানসভায় বিষয়টি উত্থাপন করেন। এসময় তিনি বলেন, গত ডিসেম্বরে সংসদে পাস হওয়া নতুন নাগরিকত্ব আইন পাঞ্জাবসহ দেশজুড়ে ক্ষোভ ও সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টি করেছে। এই আইনকে ‘বৈষম্যমূলক’ বলে অভিহিত করা হয়। খবর এনডিটিভির

প্রস্তাবে বলা হয়, ‘এটা স্পষ্ট যে সিএএ দেশের নিরপেক্ষ ভাবমূর্তি, যা সংবিধানের প্রাথমিক বৈশিষ্ট্য, তার পরিপন্থী। ফলে কক্ষ থেকে সিএএ বাতিলের প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে ভারত সরকারকে। যাতে ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব প্রদানের মাধ্যমে কোনও বৈষম্যকে এড়ানো সম্ভব হয়। এবং ভারতের সমস্ত ধর্মীয় সংগঠনের জন্য আইনের সাম্য নিশ্চিত করা যায়।’

প্রস্তাবে আরও বলা হয়, এনআরসি ও তার সম্ভাব্য প্রথম ধাপ এনপিআর বিষয়ে পদক্ষেপ করা হচ্ছে দেশের এক শ্রেণির নাগরিককে বঞ্চিত করার জন্য।

এর আগে কেরালা সরকার দেশের প্রথম রাজ্য সরকার হিসেবে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়। সুপ্রিম কোর্টে এই আইনের বিষয়ে ৬০টি পিটিশন জমা পড়েছে।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে আফগানিস্তান, পাকিস্তান, বাংলাদেশ থেকে ২০১৫ সালের আগে আগত অমুসলিম শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

সমালোচকদের মতে, এই আইন বৈষম্যমূলক এবং সংবিধানে বর্ণিত দেশের ধর্মনিরপেক্ষ ভাবমূর্তির পরিপন্থী।

ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় প্রতিবাদ চলছে।

সময় জার্নাল/আরইউটি/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ