এএসআইসহ আহত ৩
মালিবাগে পুলিশের গাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণ

প্রকাশিতঃ ১২:০২ পূর্বাহ্ণ, সোম, ২৭ মে ১৯

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর মালিবাগ মোড়ে পুলিশের গাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণে ট্রাফিক পুলিশের এক নারী এএসআই ও এক রিকশাচালকসহ ৩জন আহত হয়েছেন।

এএসআই’র নাম রাশেদা আক্তার বাবলি (২৮) ও রিকশাচালেকর নাম লাল মিয়া (৫০) অপর একজন পথচারী যার নাম জানা যায়নি। রোববার রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আহত অবস্থায় তাদের দুইজনকে প্রথমে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

রাশেদার বাম পায়ে ও লাল মিয়ার মাথায় ককটেলের আঘাত লেগেছে। তবে অপর আহত পথচারীকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

ট্রাফিক পূর্ব বিভাগের (সবুজবাগ) সার্জেন্ট এনামুল হক জানান, মালিবাগ মোড়ে কর্তব্যরত অবস্থায় পুলিশের গাড়ির পাশে একটি ককটেল বিস্ফোরণ হয়। এতে পাশে থাকা রাশেদা ও লাল মিয়া আহত হন।

আহত রাশেদা জানান, তিনি রাস্তায় দায়িত্বরতরত ছিলেন। এসময় একটি ককটেল তার পাশেই বিস্ফারিত হয়। এতে তার পায়ে আঘাত লাগে। ও পুলিশের গাড়ির পিছনে কিছুটা আগুন ধরে যায়।

আহত লাল মিয়া (৫৫) জানান, তার বাসা তেজকুনি পাড়া। রিকশা নিয়ে মালিবাগ মোড়ে বসেছিলেন। এমন সময়ে বিস্ফোরণ হয়। এতে তার মাথায় আঘাত লাগে। তবে কাউকে দেখেননি তিনি।

এ বিষয়ে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদফতরের কন্ট্রোল রুমের ডিউটি অফিসার মো. কামরুল হাসান বলেন, আগুনের সংবাদ খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভায়।

এসময় গাড়িতে থাকা নারী পুলিশ সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) রাশেদা খাতুনসহ একজন পথচারী ও একজন রিক্শাচালক লাল মিয়াকে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে নিয়ে যায় ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ। পরে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ঘটনাস্থলে থাকা পল্টন থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সৈয়দ আলী বলেন, ‘আমি পাশেই ছিলাম। মনে হয়েছে গাড়িতে বোমা জাতীয় কিছু বিস্ফোরণ হয়েছে। তবে কী ধরনের বোমা, আদৌ বোমা কি-না সেটি বলতে পারছি না।’

বোমা হামলার ঘটনা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে তিনি বলেন, বোমা হামলার সঙ্গে কোনো গোষ্ঠী জড়িত কি-না তা নিশ্চিত নয়। আহতরা আশঙ্কামুক্ত।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ