মিলমালিক, পাইকার ও ফড়িয়ারা অতিমুনাফার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত: কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ ৮:০৬ অপরাহ্ণ, রবি, ২৫ অক্টোবর ২০

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : অতি মুনাফার ষড়যন্ত্র রুখতে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতিতেও দেশে খাদ্য উৎপাদন অব্যাহত রয়েছে।

গত বোরো মৌসুমেও ধানের অত্যন্ত ভালো ফলন হয়েছে। কিন্তু কয়েক দফার দীর্ঘস্থায়ী বন্যার কারণে আমন ধান উৎপাদন কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। আশানুরূপ উৎপাদন না হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে। এসব কারণে আমরা লক্ষ্য করছি, যারা মিল মালিক, পাইকার ও ফড়িয়া-এরা মিলে অতি মুনাফা করার জন্য নানা রকম ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তবে সরকার এদের ষড়যন্ত্র রুখতে খুব সতর্ক ও কঠোর অবস্থানে আছে। করোনা পরিস্থিতিতেও দেশে খাদ্য উৎপাদন অব্যাহত রয়েছে।

রোববার (২৫ অক্টোবর) সকালে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে আহম্মদ আলী মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় বন্যা আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময়ই কৃষিবান্ধব ও কৃষকদরদি। তাঁর নেতৃত্বে সরকারের কৃষিবান্ধব নীতি নেওয়া, সার, বীজ, সেচসহ কৃষি উপকরণে ভর্তুকি দেওয়া এবং ফসলের উন্নতজাত উদ্ভাবন ও চাষের ফলে দেশে খাদ্য উৎপাদনে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। এ দুর্যোগেও এখনো পর্যন্ত দেশে খাদ্যের কোনো সংকট হয়নি। সামনের দিনগুলোতেও যে কোনো পরিস্থিতিতে কোনোভাবেই যাতে মানুষের খাদ্য সংকট না হয়, সেজন্য প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সরকার পূর্বপ্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে।

সরকারের লক্ষ্য হলো- বাংলাদেশের কোনো মানুষকে যাতে না খেয়ে কষ্ট করতে না হয়, সেটার নিশ্চয়তা দেওয়া। সেজন্য প্রয়োজন হলে অল্প পরিমাণ চাল বিদেশ থেকে আমদানি করা হবে, যোগ করেন মন্ত্রী।

এসময় মধুপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছরোয়ার আলম খান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আরিফা জহুরা, পৌরসভার মেয়র মো. মাসুদ পারভেজসহ উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

সময় জার্নাল/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।