মুত্রনালী সংক্রমণ বা ইউটিআই এর আক্রমন থেকে বাঁচার উপায়

প্রকাশিতঃ ১২:১০ অপরাহ্ণ, বুধ, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০

ডাঃ তাজকেরা সুলতানা চৌধুরী :

মূত্রনালীর সংক্রমণ হলে ঘন ঘন প্রস্রাবের বেগ হওয়া, শ্রোণী অঞ্চলে ব্যথা হওয়া সহ আরো অনেক উপসর্গ দেখা দেয়। নির্দিষ্ট কিছু কাজের ফলে এর উপসর্গ আরো খারাপ হয়। ইউরোলজি বিষয়ে ডাক্তারদের মতে ইউটিআই এর সমস্যা থাকলে যে ভুলগুলো করা ঠিক নয় সে বিষয়গুলো জেনে নিই চলুন।

১। পানি পান করা:

ঘন ঘন মূত্র ত্যাগের ফলে শরীরের পানির পরিমাণ কমে যায় বলে মুত্রাশয়ে ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পায়। তাই নিয়মিত পানি পান করা উচিৎ। নিয়মিত পানি পান করা ও প্রস্রাব করার ফলে মূত্রনালীর প্রাচীর পরিষ্কার হতে সাহায্য করে।

২। প্রস্রাব আটকে না রাখা:

দীর্ঘক্ষণ প্রস্রাব আটকে রাখার ফলে আপনার মূত্রনালীতে বড় ধরনের সমস্যা তৈরি হতে পারে। প্রস্রাব বেশীক্ষণ আটকে রাখলে জীবাণুরাও মূত্রাশয়ের মধ্যে আবদ্ধ হয়ে ভাসতে থাকে। তাই বেশীক্ষণ প্রস্রাব আটকে রাখা ঠিক নয়।

৩। নিজে নিজেই ঔষধ গ্রহণ না করা:

ইউটিআই এর সমস্যা দেখা দিলে যদি আপনি নিজে নিজেই ঔষধ গ্রহণ করা শুরু করে দেন তাহলে আপনি আপনার সমস্যাটিকে বাড়িয়ে তুলবেন। চিকিৎসা শুরু না করে অপেক্ষা করে বসে থাকলে মূত্রনালীর সংক্রমণ থেকে তীব্র কিডনি ইনফেকশন হতে পারে। ব্যাকটেরিয়া ছড়িয়ে গেলে কোমরে ব্যথা, জ্বর ও বমি হওয়ার মত উপসর্গগুলো দেখা দেয়।

৪। অ্যান্টিবায়োটিক কোর্স শেষ করা:

আপনি হয়তো অ্যান্টিবায়োটিকের দুটি ডোজ খাওয়ার পরেই সুস্থ অনুভব করতে পারেন কিন্তু যদি পুরো কোর্স সম্পন্ন না করেন তাহলে ঔষধের বিরুদ্ধে ব্যাকটেরিয়া প্রতিরক্ষার ব্যবস্থা তৈরি করবে। অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করাটাও অর্থহীন হবে। এজন্যই অ্যান্টিবায়োটিক এর কোর্সের মেয়াদ পুরোপুরি শেষ না করে মাঝ পথে ছেড়ে দেয়া বা ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়াই বিরতি দিয়ে পুনরায় খাওয়া শুরু করা ঠিক নয়।

ডাঃ তাজকেরা সুলতানা চৌধুরী
সহকারী অধ্যাপক, সহীদ সহরওয়ার্দ্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ