রুম্পার বন্ধু সৈকতের ৭ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ

প্রকাশিতঃ ৪:২১ অপরাহ্ণ, রবি, ৮ ডিসেম্বর ১৯

স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী রুবাইয়াত শারমিন রুম্পার মৃত্যুর ঘটনায় গ্রেপ্তার সৈকতকে ৭ দিনের রিমান্ডে নিতে চায় পুলিশ।

বিষয়টি আদালতে তুলতে রোববার দুপুরের পর তাকে নিয়ে মিন্টু রোডের কার্যালয় থেকে রওনা হন গোয়েন্দারা।

ঢাকা মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদের আদালতে বেলা ৩টার দিকে রিমান্ড শুনানি হবে।

এর আগে খিলগাঁও থেকে সৈকতকে গ্রেপ্তারের কথা নিশ্চিত করেন পুলিশের কর্মকর্তারা।ডিএমপির গণমাধ্যম শাখার প্রধান মাসুদুর রহমান জানান, শনিবার সন্ধ্যায় খিলগাঁও এলাকা থেকে সৈকতকে আটক করা হয়। সে স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির বিবিএ বিভাগের ৫৯তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। রিমান্ড চেয়ে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ বলছে, পুরুষ হোস্টেলের একটি কক্ষে হয়তো রুম্পাকে হত্যা করা হয়েছে। তবে রোববার দুপুর পর্যন্ত রহস্য উদঘাটনে পিবিআই, ডিবি এবং সিআইডি আলাদাভাবে তদন্ত করছে। ঘটনাস্থলের আশপাশ থেকে (সিদ্ধেশ্বরী সার্কুলার রোডে ৬৪/৪ নম্বর বাড়ির) সিসি ক্যামেরাও পুলিশ সংগ্রহ করেছে।

প্রসঙ্গত, গত ৪ ডিসেম্বর বিকেল ৫টার পর রুম্পা রাজধানীর শান্তিবাগের বাসা থেকে বের হন। রাত পৌনে ১১টার দিকে বাসা থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে সিদ্ধেশ্বরী সার্কুলার রোড থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

ঘটনাস্থলে পাশাপাশি তিনটি ভবনের কোনো একটি থেকে পড়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানায় পুলিশ। তবে তাকে কেউ নিচে ফেলে হত্যা করেছে নাকি তিনি আত্মহত্যা করেছেন, এখনও তা জানা যায়নি।

রুম্পার বাবা পুলিশের ইন্সপেক্টর রোকন উদ্দিন বলেন, তার মেয়ে আত্মহত্যা করতে পারে না। তাকে হত্যা করে কেউ ফেলে দিয়েছে।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ