লক্ষীপুরে বাড়ছে ডায়রিয়া-নিউমোনিয়া রোগীর সংখ্যা

প্রকাশিতঃ ২:০৮ অপরাহ্ণ, রবি, ২২ ডিসেম্বর ১৯

মো: ইউসুফ: শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে লক্ষীপুরে দেখা দিয়েছে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া রোগীর সংখ্যা। এক সপ্তাহে সদর হাসপাতালেই নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৮ শতাধিক শিশু চিকিৎসা নিয়েছেন। ভর্তি হয়েছে ৩ শতাধিক শিশু। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোর চিত্র একই। আক্রান্তদের মধ্যে শিশুর সংখ্যাই বেশি। তবে চিকিৎসকরা বলছেন, আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ার প্রকোপ বেড়েই চলেছে। পর্যাপ্ত ওষুধ সরবরাহ রয়েছে। প্রতিনিয়ত মনিটরিং করা হচ্ছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ১শ’ শয্যার লক্ষীপুর জেলা সদর হাসপাতাল। প্রতিদিন নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে এসব শিশু চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে ভিড় করছেন। আক্রান্ত হয়ে জরুরি বিভাগে ৭০-৮০ শিশু চিকিৎসা নিচ্ছে। এর মধ্যে গড়ে ৩৫-৪০ জন হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন। প্রতিটি বেডে ৩-৪ জন রোগী ভর্তি করা হচ্ছে। নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া আক্রান্ত হয়ে গত এক সপ্তাহে এখানে চিকিৎসা নিয়েছেন প্রায় ৭ শতাধিক রোগী। এর মধ্যে ৪ শতাধিক শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ ছাড়া কমলনগর, রামগতি, রায়পুর ও রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও আসছে নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীরা। পর্যাপ্ত চিকিৎসক ও নার্স না থাকায় এসব রোগীর সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে চিকিৎসকদের। দ্রুত এসব সমস্যা সমাধানের দাবি এলাকাবাসীর।

রোগী ও স্বজনদের অভিযোগ, ভর্তির পর হাসপাতাল থেকে তাদের খাবার স্যালাইন ও সামান্য কিছু ওষুধ দেয়া হয়। বাকি ওষুধ বাইরে থেকে কিনতে হয়। এ ছাড়া তেমন চিকিৎসা পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন তারা। প্রতিদিনই ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে। প্রতি বেডে এক শিশুকে চিকিৎসা দেয়ার কথা থাকলেও বেড না থাকায় ৩-৪ শিশুকে এক বেডে থেকে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে। এতে করে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রোগী ও স্বজনদের।

সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মো. ইছমাইল হাসান ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন জানান, শীতে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যায়। আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। ঠাণ্ডার কারণে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ার প্রকোপ বেড়েই চলছে। আক্রান্ত হয়ে জরুরি বিভাগে ৭০-৮০ শিশু চিকিৎসা নিচ্ছে। পর্যাপ্ত ওষুধ সরবরাহ রয়েছে। প্রতিনিয়ত মনিটরিং করা হচ্ছে। সাধ্যমত চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। শিশুদের গরম কাপড় পরিধানসহ বিভিন্ন পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

সময় জার্নাল-লক্ষীপুর

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ