শমরিতা হাসপাতালে করোনা ইউনিট চালু

প্রকাশিতঃ ৫:০৫ অপরাহ্ণ, শনি, ৪ জুলাই ২০

সময় জার্নাল প্রতিবেদক : করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য বিশ্বমানের পর্যাপ্ত ভেন্টিলেটর ও হাইফ্লো নেজাল অক্সিজেন ডেলিভারি মেশিন সমৃদ্ধ স্পেশালাইজড আইসিইউ ও আইসোলেশন ওয়ার্ডে করোনা চিকিৎসার মাধ্যমে এম এইচ শমরিতা হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ বৈশ্বিক মহামারি করোনা প্রতিরোধে অবদান রাখতে চলছে। প্রাথমিক পর্যায়ে গত ২৮ জুন থেকে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে প্রতিষ্ঠানটির করোনা ইউনিটে ২০ বেডের বিশেষায়িত আইসিইউ ও ৫০ বেডের আইসোলেশন ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে।

এ উপলক্ষ্যে এক ভিডিও বার্তায় হাসপাতালের চেয়ারম্যান আহসানুল ইসলাম টিটু এমপি বলেন, ‘দেশের প্রতিটি মানুষকে আমি আমার পরিবারের সদস্য মনে করি। তাই কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে এই যুদ্ধে আমি এবং এম এইচ শমরিতা হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ পরিবার আপনাদের সুরক্ষিত করতে প্রস্তুত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সকল নিয়ম মেনে সম্পূর্ণ উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে এম এইচ শমরিতা হাসপাতালে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন করোনা ইউনিট চালু করতে পেরে গর্বিত। এই যুদ্ধে নিশ্চয়ই আমরা জয়ী হব।’

এম এইচ শমরিতা হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. দিলীপ কুমার ধর তার বক্তব্যে বলেন, ‘করোনা রোগীর চিকিৎসার সুব্যবস্থা করাই করোনা ইউনিট চালুর প্রধান লক্ষ্য। আমরা মনে করি আমাদের প্রয়াত চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মকবুল হোসেনের স্বপ্ন পূরণ হবে তখনই, যখন আমাদের হাসপাতাল থেকে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়ে আপনজনদের কাছে ফিরে যাবেন। আর সেই স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যেই আমরা অঙ্গীকারাবদ্ধ। দেশের স্বনামধন্য হৃদরোগ, কিডনিরোগ ও লিভারসহ অন্যান্য ক্রিটিক্যাল কেয়ার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সমন্বয়ে গঠিত মেডিকেল বোর্ড আমাদের আইসিইউ ও আইসোলেশন ইউনিট পরিচালনার দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন। সেই সাথে প্রখ্যাত ভারতীয় ক্রিটিক্যাল কেয়ার বিশেষজ্ঞ ডা. রাজেশ মিশ্রা চিকিৎসা কার্যক্রমে সার্বক্ষণিকভাবে সম্পৃক্ত থাকবেন।’

করোনা ইউনিট নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা প্রসঙ্গে হাসপাতালের হেড অফ অপারেশন্স মো. নাসির উদ্দিন জানান, পরবর্তীতে হাসপাতালের আইসিইউকে ৫০ বেডে উন্নীত করার প্রস্তুতি চলছে।

সময় জার্নাল/শাহ্ আলম

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।