সাতক্ষীরায় যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে কুপিয়ে আহত

প্রকাশিতঃ ৭:২৫ অপরাহ্ণ, সোম, ২০ এপ্রিল ২০

মুহা: জিললুর রহমান, সাতক্ষীরা : জেলায় পাঁচ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে এক সন্তানের জননী জান্নাতুল নাঈম রিতু (২৭) নামের এক গৃহবধুকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে মারত্মক জখম করা হয়েছে।

সোমবার সকালে শহরের সুলতানপুর শেখপাড়ায় গৃহবধূকে স্বামী-দেবর ও শাশুড়ি মিলে আহত করেন। বর্তমানে ওই গৃহবধূ সাতক্ষীরা সদর হাসপাতলে চিকিসাধীন রয়েছেন।

সাতক্ষীরা সদর থানায় আহত গৃহবধূর দাখিলকৃত এজাহার সূত্রে জানা যায়, ‘প্রায় চার বছর আগে শ্যামনগর উপজেলার পশ্চিম মাহমুদপুর গ্রামের ঈমান আলী গাজীর ছেলে আবু বকর সিদ্দিকের সাথে বাগেরহাট জেলার ফকিরহাট থানার ছোটবাহিরদিয়া গ্রামের মৃত মিজানুর রহমানের মেয়ে জান্নতুল নাঈমের বিয়ে হয়। তাদের ঘরে দুই বছরের একটি মেয়ে সন্তান আছে। বিয়ের পর তার স্বামী বিভিন্ন অজুহাত দিয়ে রিতুর বাবার কাছ থেকে যৌতুক হিসেবে প্রায় ১২ লাখ টাকা আদায় করে।’

আরও জানা যায়, ‘সম্প্রতি স্বামী আরও ৫ লাখ টাকা দাবি করেন। কিন্তু টাকা দিতে অস্বীকার করায় ঘটনার দিন তার স্বামী আবু বকর সিদ্দিক, দেবর রুহুল কুদ্দুস ও শ্বাশুড়ি আছিয়া খাতুন মিলে রিতুকে বেধম মারপিট করে আহত করে। এসময় তার স্বামী ধারালো ছুরি দিয়ে তাকে জবাই করতে আসে। প্রাণ বাঁচাতে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে আবু বকর সিদ্দিক গৃহবধূর বাম হাতে এলোপাতাড়ি কোপ মারে। দেবর ও শ্বাশুড়ি তাকে লোহার রড দিয়ে শরীরের বিভিন্নস্থানে পিটিয়ে মারাত্মক জখম করে। এঘটনায় তার বাম হাতে ১৫টি সেলাই দিতে হয়েছে। মারপিটের সময় জ্ঞান হারিয়ে ফেললে প্রতিবেশিরা তাকে উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।’

আহতের ভাই আশরাফুল মিজান জানান, ‘তিনি বাগেরহাটে বসে খবর পেয়ে সাতক্ষীরায় এসে বোনের বাড়িতে যাওয়ার সময় শহিদ রাজ্জাক পার্কের গেটে তার ভগ্নিপতির ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা একজোটে তার উপর হামলা চালিয়ে তাকে গুরুতর জখম করে। তিনি দুই হাটুতে মারাত্বক জখমপ্রাপ্ত বলে জানান।’

সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: আসাদুজ্জামান জানান, ‘আহত গৃহবধূ থানায় স্বামী দেবর ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে এজাহার দাখিল করেছেন। আসামিদের ধরতে পুলিশ অভিযানে নেমেছে বলে তিনি জানান।’

সময় জার্নাল/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ