‘হতে পারে আপনার সঙ্গে এটিই আমার শেষ যোগাযোগ’

প্রকাশিতঃ ৮:৪২ অপরাহ্ণ, মঙ্গল, ১২ নভেম্বর ১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ নং ধারাটি বাতিলের মাধ্যমে কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন চিনিয়ে নেওয়ার পর গৃহবন্দি নেতাদের এখনও মুক্তি দেয়নি নরেন্দ্র মোদী সরকার। তাই কাশ্মীরিদের রক্ষায় আরও জোরালো ভুমিকা গ্রহণ করতে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে আহ্বান জানিয়েছেন ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের সর্বদলীয় হুররিয়াত কনফারেন্সের(এপিএইচসি) প্রধান সাইয়েদ আলী গিলানি।

সোমবার গৃহবন্দি অবস্থা থেকে লেখা এক চিঠিতে পাক প্রধানমন্ত্রীকে তিনি বলেন, হতে পারে আপনার সঙ্গে এটিই আমার শেষ যোগাযোগ। শারীরিক অসুস্থতা ও প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে আপনাকে হয়তো বা আর চিঠি লেখা যাবে না। খবর জিয়ো নিউজ ও এক্সপ্রেস ট্রিবিউন উর্দূর।

কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল করে অঞ্চলটিকে দুই ভাগ করে ফেলার পর থেকেই গৃহবন্দি অবস্থায় রয়েছেন হুররিয়ত নেতা সৈয়দ আলী শাহ গিলানি।

প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের সহায়তা চেয়ে সর্বদলীয় এ হুররিয়াত নেতা বলেন, স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পর থেকে ভারত সরকার জোরপূর্বক আমাদের জায়গা-জমি ছিনিয়ে নিতে চাচ্ছে। জাতিসংঘ ঘোষিত নীতিমালাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কাশ্মীরি নারীদের প্রতিনিয়ত হেনস্তা করছে ভারতীয় বাহিনী।

ওই চিঠিতে সৈয়দ আলী গিলানি বলেন, কাশ্মীরকে ভারত সরকার অবরুদ্ধ করে একটি জেলখানায় পরিনত করেছে। সবধরণের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করার পরও কাশ্মীরের জনসাধারণ ভারতীয় জুলুমের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে। পরিস্থিতি এমন যে, ভারতীয় বাহিনীর গুলির মুখেও কাশ্মীরি জনগণ প্রতিবাদ করছে।

স্বাধীনতা সংগ্রামে পাকিস্তানের ব্যাপক সহায়তার প্রয়োজন উল্লেখ কাশ্মীরের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রবীণ এ নেতা বলেন, এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি সন্ধিক্ষণ। সর্বদলীয় সংসদীয় বৈঠকের মাধ্যমে পাকিস্তানের উচিত একটি মৌলিক সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া।

ইমরান খানের উদ্দেশে লেখা চিঠিতে ভারতের সঙ্গে সবধরণের চুক্তি স্থগিত রাখারও আহ্বান জানান সৈয়দ আলী গিলানি।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ