হাতি হত্যা ও একটি প্রতিবাদের শিল্প-কর্ম

প্রকাশিতঃ ১০:৩২ পূর্বাহ্ণ, বৃহঃ, ৪ জুন ২০

মাইন উদ্দিন পাঠান

ভারতের কেরালার অবুঝ হাতির নৃশংস হত্যার হৃদয় বিদীর্ণ করা কাহিনী অতি স্বল্প সময়ে ছড়িয়ে পড়েছে। মিডিয়ার কল্যাণে সব শ্রেণি, পেশা ও বয়সের মানুষের কাছে বর্ণিতরূপে নিরন্তর পৌঁছে যাচ্ছে। হাতিটি গর্ভবতী ছিল। আনারসের ভিতরে একগাদা বাজি ঢুকিয়ে হাতিকে খেতে দেয়। তারপর …স্তম্ভিত বিশ্ব।

কেরালায় শতভাগ মানুষ শিক্ষিত। ওদের শিক্ষার এই বিস্তার ও সামর্থ যে কোন মানুষকে বিমোহিত করে। একটা অন্যরকম ভালোলাগা কাজ করে। সেই কেরালার মানুষ এতো জঘন্য কাজ করতে পারে ভাবা যায় ! শিক্ষা ইতিবাচক পরিবর্তন আনে। এদের শিক্ষা মূল্যবোধহীন শিক্ষা (!)

অবুঝ হাতির নৃশংস হত্যার হৃদয় বিদীর্ণ করা কাহিনী নিয়ে একটি শিল্প-কর্ম আমার হৃদয় ছুঁয়ে গেল। একজন তরুণীর দৃঢ় প্রতিবাদের শিল্প-কর্ম। সকালে প্রিয় ছাত্র মাসুম জুলকারনাইন সেটি আমার কাছে তুলে ধরেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম পেইজ বুকে অসংখ্যজনের কাছে অসাধারণ শিল্প-কর্মটির গভীরতায় ব্যাপক আবেদন সৃষ্টি করেছে।

হাতী হত্যা ও একটি প্রতিবাদের শিল্প-কর্ম ভারতের কেরালার অবুঝ হাতীর নৃশংস হত্যার হৃদয় বিদীর্ণ করা কাহিনী অতি স্বল্প সময়ে…

Posted by Main Uddin Pathan on Wednesday, June 3, 2020

লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের ছাত্রী ও কলেজ ‘চারুকলা সংসদে’র সদস্য ফাতেমা তুজ-জোহরা তাসনিম। সে তরুণী আমার প্রিয় শিক্ষার্থীদের একজন। এদের সামর্থ সৃষ্টির জন্য কলেজে চারুকলা সংসদসহ অনেকগুলো সংঘ প্রতিষ্ঠা করেছি। কলেজের অনেক শিল্প-কর্মের সৃষ্টিশীলতায় আমার শিক্ষার্থীগণ কাজ করে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আগ্রহে পুলকসঞ্চার করেছিল। এছাড়া লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজে আলোর সন্ধানে কয়েক ধাপ এগিয়েছিল।

তাসনিম হাতি হত্যার এই ছবিটি নিজ আবেগ ও বুদ্ধিমত্তা দিয়ে এঁকেছে। একটি শিল্প-কর্মে শিল্পীর ভাবনার জগৎ প্রকাশিত হয়। সে জগৎ শুধু কল্পকাহিনি নয়, সৌন্দর্যের আনন্দ নয়; শত-সহস্র মানুষের হৃদয় ছুঁয়ে দিয়ে, মানুষকে নাড়া দিয়ে ‘মূল্যবোধ’ জাগিয়ে তুলতে পারে। সে শিক্ষা আসল শিক্ষা। তাসনিমের আবেগ ও সামর্থে আমি আনন্দিত। এগিয়ে চলো….

লেখক : সাবেক অধ্যক্ষ, লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজ।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

সময় জার্নাল/শাহ্ আলম

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।