৪৩ হাজার ৯৮৯ কোটি টাকা ব্যয়
৮ বছরে রেল দূর্ঘটনায় ২০৩ জনের প্রাণহানি

প্রকাশিতঃ ১১:৪০ পূর্বাহ্ণ, সোম, ২৫ নভেম্বর ১৯

নিউজ ডেস্ক: চলতি অর্থবছরসহ গত ৫ অর্থবছরে রেল খাতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ছাড়া শুধুই রেলের উন্নয়নের জন্য ৪৩ হাজার ৯৮৯ কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে। কিন্তু বেসরকারি হিসাবে গত ৮ বছরে ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় ১৪শ’ দূর্ঘটনা ঘটেছে রেলের। এতে প্রাণ হারায় প্রায় আড়াইশ’ যাত্রী। নিরাপদ বাহন রেল এখন হয়ে উঠছে অনিরাপদ বাহনে।

সূত্র বলছে, একের পর এক নতুন নতুন প্রকল্প হাতে নেয়া হলেও সংস্কারে গুরুত্ব না দেয়ার খেসারত এখন দিতে হচ্ছে দুর্ভাগা যাত্রীদের। অথচ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রেলের উন্নয়নে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে আসছেন, দিচ্ছেন প্রয়োজনীয় বরাদ্দও। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

সূত্রমতে, সম্প্রতি রেলের উন্নয়ন নিয়ে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠক হয় রেল মন্ত্রণালয়ে। সেখানে রেলের উন্নয়ন নিয়ে নানামুখী আলোচনা ওঠে আসে। ওই বৈঠকে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, রেললাইন সঙ্কুচিত হচ্ছিল।

প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে তা সম্প্রসারণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এরই মধ্যে নতুন কয়েকটি লাইন চালুর পাশাপাশি প্রায় ৩৩১ কিলোমিটার নতুন রেলপথ সংযোজন করা হয়েছে। নতুন রেলস্টেশন নির্মাণ ও পুরনো লাইন মেরামত করা হচ্ছে। এ সময় তিনি রেলের সেবা বৃদ্ধির কথাও উল্লেখ করেন।

সর্বশেষ ১৪ নভেম্বর সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের ইঞ্জিন ও ৭টি বগি লাইনচ্যুত হলে তাতে আগুন ধরে আহত হন ২৫ জন। এর দু’দিন আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় তূর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেসের সংঘর্ষে ১৬ জন প্রাণ হারান। আহত হন শতাধিক।

গত ২৩ জুন রাতে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনের ৬টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে প্রাণ হারান ৫ জন। আহত হন শতাধিক যাত্রী। এছাড়া ছোটখাটো লাইনচ্যুতির ঘটনা তো আছেই। সূত্র বলছে, ২০০৯-১০ থেকে ২০১৬-১৭ অর্থবছর পর্যন্ত মেইন ও শাখা লাইনে ১ হাজার ৩৯১টি রেল দুর্ঘটনা ঘটে।

এতে ২০৩ জন নিহত ও ৫৮৬ জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে ২০০৯-১০ অর্থবছরে ৩০৮টি, ২০১০-১১ অর্থবছরে ২২৪টি, ২০১১-১২তে ১৮২টি, ২০১২-১৩তে ১৭৬টি এবং ২০১৩-১৪তে ২০৩টি দুর্ঘটনা ঘটে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে বড় ধরনের ব্যয় করা হলেও দুর্ঘটনা প্রতিরোধ ও নিরাপদ বাহন হিসেবে রেলকে খুব বেশি আকর্ষণীয় করা যাচ্ছে না।

মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র বলছে, সম্প্রতি রেল খাতে অনেক অর্থ ব্যয় হয়েছে। গেল ডিসেম্বরে শেষ হয় খুলনা ও ইয়ার্ড রিমডেলিং এবং বেনাপোল রেলওয়ে স্টেশনের অপারেশনাল সুবিধার উন্নয়ন কাজ। গত জুনে শেষ হয়েছে

পাটুরিয়া-ফরিদপুর-ভাঙ্গা রেলপথ পুনর্বাসন ও নির্মাণ প্রকল্প। একই সময়ে সমাপ্ত হয়েছে ঈশ্বরদী থেকে পাবনা হয়ে চালারচর পর্যন্ত নতুন ৭৮ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণ। প্রায় ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ঈশ্বরদী-জয়দেবপুর সেকশনের ৪টি স্টেশন নির্মাণ ও তৃতীয় লাইনগুলোতে কম্পিউটারবেইজড ইন্টারলকিং করা হয়।

এছাড়া রেলওয়ের পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের লেভেল ক্রসিং ও গেটগুলোর পুনর্বাসন ও মান উন্নয়ন করা এবং ১০০টি মিটারগেজ যাত্রীবাহী বগি কেনা হয়। পাশাপাশি মধুখালী থেকে কামারখালী হয়ে মাগুরা পর্যন্ত ব্রডগেজ লাইন নির্মাণ কাজের পরামর্শক নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

সূত্র বলছে, রেল খাতের অধিকাংশ ব্যয় হচ্ছে উন্নয়ন ও বেতন-ভাতা খাতে। সংস্কারে খুব বেশি বরাদ্দ হচ্ছে না।

ব্রিটিশ আমলের রেললাইন নিয়মিত সংস্কারের প্রয়োজন থাকলেও সেগুলো ঠিকমতো হচ্ছে না। পাশাপাশি অনেকদিন ধরেই রেলের জনবল কম।

১৯৯১ সালে তৎকালীন সরকার ক্ষমতায় আসার পর একসঙ্গে ১০ হাজার স্টাফকে ‘গোল্ডেন হ্যান্ডশেকে’ বিদায় করার পর সেভাবে জনবল নেয়া হয়নি। জানতে চাইলে রেল সচিব মো. মোজাম্মেল হোসেন বলেন, প্রতি বছরই রেলে বাজেট বাড়ছে। এর বড় অংশই ব্যয় হচ্ছে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে। সংস্কার ও মেরামতে ব্যয় হচ্ছে কমই। তবে রেল এমন একটি পরিবহন, যার নার্সিং সব সময় প্রয়োজন। বিশেষ করে সিগন্যাল লাইন, পাথর বিছানো, রেললাইন সংস্কার ও বিভিন্ন ধরনের কাজসহ সবকিছু হালনাগাদ রাখতে হয়। সেই হিসাবে বাজেটে সংস্কার খাতে বরাদ্দ কম থাকে।

তিনি বলেন, সংস্কার খাতে বাজেট বাড়ানোর পাশাপাশি বরাদ্দ অর্থ সঠিক ও সতর্কতার সঙ্গে ব্যবহার করতে হবে; যাতে অর্থের কোনো অপচয় না হয়। সূত্র জানায়, রেল খাতের উন্নয়নে চলতি অর্থবছরে ১২ হাজার ৩৩৭ কোটি টাকা ব্যয়ের লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে ব্যয় করা হয়েছে ১১ হাজার ১৫৫ কোটি টাকা। ২০১৫-১৬ থেকে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে যথাক্রমে ৫৬৫ কোটি টাকা, ৯ হাজার ১১৫ কোটি ও ১০ হাজার ৮১৭ কোটি টাকা ব্যয় করা হয়। বাকি ২১ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করা হয়েছে বেতন-ভাতা ও পরিচালনা খাতে।

সংশ্লিষ্টদের মতে, রেল খাতে ব্যয় ও রেলপথ বাড়লেও দীর্ঘদিনের পুরনো লাইনগুলো ঠিকমতো সংস্কার না করায় রেল দুর্ঘটনা বাড়ছে। রেলপথে ছোট-বড় ৩ হাজার ১৪৩টি কালভার্ট-ব্রিজের অধিকাংশই ব্রিটিশ আমলের। সংস্কার না করায় এর ৪০২টি সেতুই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

রেল দুর্ঘটনা রোধে বিশ্বব্যাপী নানা প্রযুক্তির প্রয়োগ হলেও আমাদের দেশে আধুনিক প্রযুক্তির ছোঁয়া লাগেনি। পার্শ্ববর্তী ভারতে ট্রেনের মুখোমুখি দুর্ঘটনা রোধে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার হচ্ছে। সেখানে কোনো রেললাইনে দুটি ট্রেন মুখোমুখি চলে এলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ট্রেন বন্ধ হয়ে যায়।

এছাড়াও আমাদের দেশে রেলে অভিজ্ঞ চালকের অভাব আছে। নতুনদের পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ না দিয়েই চালকের আসনে বসিয়ে দেয়া হচ্ছে। চালক সংকটের কারণে অনেক ক্ষেত্রে অভিজ্ঞদের অতিরিক্ত ডিউটি করতে হচ্ছে।

রেল দুর্ঘটনার আরেকটি উল্লেখযোগ্য কারণ অরক্ষিত রেলক্রসিং। এক হিসাবে দেখা গেছে, সারা দেশে ২ হাজার ৯৫৫ কিলোমিটার রেলপথে লেভেল ক্রসিং রয়েছে ২ হাজার ৫৪১টি। এর অর্ধেকের বেশি লেভেল ক্রসিং অরক্ষিত। এগুলোতে কোনো প্রহরী নেই।

এসব লেভেল ক্রসিংয়ে শুধু ‘সামনে রেলক্রসিং, সাবধানে চলাচল করুন’ সতর্কীকরণ সাইনবোর্ড ঝুলিয়েই দায়িত্ব শেষ করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষ বলছে, রেল মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্থানীয় জনগণ দিন দিন লেভেল ক্রসিং বৃদ্ধি করেই চলেছে, তাই সব লেভেল ক্রসিংয়ে গেটম্যান দেয়াও সম্ভব হচ্ছে না। -যুগান্তর

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ