‌‘জনগণের অধিকার সুরক্ষায় রাজনীতিবিদদের সোচ্চার হতে হবে’

প্রকাশিতঃ ১১:২১ অপরাহ্ণ, বুধ, ৩ জুলাই ১৯

নিউজ ডেস্ক: স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি বলেছেন, জনগণের অধিকার সুরক্ষায় বিশ্বের সব রাজনীতিবিদদের একই ভাষায় সোচ্চার হতে হবে। তাতে কাজ হবে অন্তর্ভূক্তিমূলক, সমতা ও শান্তির ভিত্তিতে কল্যাণময় বিশ্ব প্রতিষ্ঠা করা।

মঙ্গলবার (৩ জুলাই) সন্ধ্যায় রাশিয়ার মস্কোয় ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে দ্য স্টেট দুমা অব দ্য ফেডারেল এসেম্বলি অব দ্য রাশিয়ান ফেডারেশন আয়োজিত দ্য সেকেন্ড ইন্টারন্যাশনাল ফোরাম ‘ডেভেলপমেন্ট অব পার্লামেন্টারিজম-২০১৯’ এর দুই দিনব্যাপী কনফারেন্সে ‘ইন্টার-পার্লামেন্টানি কো-অপারেশন: প্রিন্সিপালস, ট্রেন্ডস এন্ড ইনস্টিটিউট’ শীর্ষক সেশনে বক্তৃতাকালে একথা বলেন।

স্পিকার বলেন, অর্থনীতি, কারিগরী ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে বৈশ্বিক পরিবর্তন লক্ষণীয়। বৈশ্বিক পরিবর্তনের ধারায় ইতিবাচক ফলাফল আনতে সকল সংসদ সদস্যদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গণতন্ত্রের সুফল ও ইতিবাচক মূল্যবোধ হতে হবে ‘সমাজে কেউ পিছিয়ে থাকবেনা’—তবেই গণতন্ত্র টেকসই হবে। দারিদ্রতা দূরীকরণ, খাদ্য নিরাপত্তা, শরণার্থী, অভিবাসন সমস্যা ও জলবায়ু পরিবর্তনসহ নানা সমস্যা পৃথক পৃথক রাষ্ট্রীয় সীমারেখায় আবদ্ধ। এ সকল সমস্যা সমাধানে সংসদীয় কূটনীতি একটি শক্তিশালী মাধ্যম বলে তিনি উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, সংসদীয় কূটনীতির মাধ্যমে আন্ত:সংসদীয় ফোরামে জটিল সমস্যাসমূহ আলোচনা ও সমঝোতার মাধ্যমে সমাধান হতে পারে। এক্ষেত্রে সংসদীয় মৈত্রী গ্রুপ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে বলে স্পিকার উল্লেখ করেন।

শিরীন শারমিন বলেন, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ ও সহনশীলতার মাধ্যমে দায়িত্বশীল ও শক্তিশালী সংসদ গড়ে তোলা সম্ভব। ১৯৭১ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীনতা লাভের পরপরই বাংলাদেশ আইপিইউ, সিপিএ, পিইউআইসিসহ আন্ত:সংসদীয় বিভিন্ন ফোরামের সদস্য হিসেবে কার্যকর ভূমিকা রাখছে।

তিনি বলেন, সমতাভিত্তিক অন্তর্ভূক্তিমূলক সমাজ গড়ার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সংসদীয় গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, মৌলিক স্বাধীনতা ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছে। এর মূল উদ্দেশ্য হলো দারিদ্রমুক্ত রাষ্ট্র বিনির্মাণ যেখানে অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক ন্যায্য হিস্যা নিশ্চিত থাকে—যা ছিল বঙ্গবন্ধুর আজন্ম লালিত স্বপ্ন।

দ্য স্টেট দুমা অব দ্য ফেডারেল এসেম্বলি অব দ্য রাশিয়ান ফেডারেশন এর চেয়ারম্যান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেশনে মরক্কো, কোরিয়া, ইরানসহ অন্যান্য দেশের পার্লামেন্টের স্পিকাররাও বক্তৃতা করেন।

সেশনে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সদস্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. শামসুল হক টুকু এমপি, মো: জিল্লুল হাকিম এমপি এবং অন্যান্য দেশের অংশগ্রহণকারীরা উপস্থিত ছিলেন।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ