সোমবার, ১৪ জুন ২০২১

করোনাকাল : নতুন আতঙ্কের নাম ব্ল্যাক ফাঙ্গাস

সোমবার, মে ১৭, ২০২১
করোনাকাল : নতুন আতঙ্কের নাম ব্ল্যাক ফাঙ্গাস

ডা. মো: মুজিবুর রহমান :

কোভিড আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকোরমাইকোসিস ধরা পড়ছে ভারতের নানা জায়গায়। এবং সংখ্যাটা দিন দিন বাড়ছে। এতদিন ভারতের গুজরাট, মহারাষ্ট্র ,দিল্লি, কর্ণাটকের মতো কিছু রাজ্যে দেখা যাচ্ছিল। এখন দেখা যাচ্ছে পাশের বাড়ি পশ্চিমবঙ্গেও। কোভিডের মতোই এই রোগও যত তাড়াতাড়ি ধরা পড়ে, ততই ভালো। দ্রুত চিকিৎসা শুরু করলে সংক্রমণ সামাল দেয়া সম্ভব। না হলে মারাত্মক রুপ ধারন করতে পারে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস। এই রোগে চিরস্থায়ী অন্ধত্ব অথবা 
মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে- এতটাই মারাত্মক ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের প্রকোপ।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের উপসর্গ কী ?

১.  শরীর ব্যাথা ,চোখ নাকের পাশ দিয়ে ত্বক লাল হয়ে যাওয়া, জ্বর,মাথা ব্যথা, কাশি, শ্বাস প্রশ্বাসে সমস্যা, রক্তবমি, স্মৃতি শক্তিতে প্রভাব অর্থাৎ ভুলে যাওয়ার সমস্যা। মূলত এইসব সমস্যা দেখা দেয় ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণ হলে। তবে ঘন ঘন নাক বন্ধ বা নাক দিয়ে রক্ত পড়া, মাড়ি ফুলে যাওয়া, চোখের দৃষ্টি ঝাপসা হওয়া, ত্বকের সমস্যা, বুকে ব্যথা হলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। কোভিড রোগী যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে বা দীর্ঘ সময় আইসিইউতে রয়েছেন তাঁদের প্রতি বিশেষ নজর রাখতে হবে।

২. তবে ভয় পেয়ে বসে থাকলে চলবে না। সতর্ক থাকতে হবে। মাস্ক ব্যবহার সবচেয়ে জরুরী। পরতে হবে গা ঢাকা ড্রেস বা জামা। যদি মাটির কোনও কাজ করতে হয়, তাহলে গ্লাভস ব্যবহার করতে হবে। শুধুমাত্র সাবান দিয়ে গোসল করলে চলবে না, ব্যবহার করতে হবে স্ক্রাব (Scurb for bath)।

৩. রক্তের শর্করার মাত্রা বা ডায়াবেটিস নিয়ণ্ত্রণ করতে হবে। ষ্টেরয়ডের মাত্রা কমাতে হবে। করোনা সংক্রমণ থেকে সেরে উঠলে এইগুলির দিকে নজর দিতে হবে। এন্টিবায়োটিক বা এন্টি ফাঙ্গাল ব্যবহার করতে হবে সতর্কভাবে। অক্সিজেন থেরাপির সময় পরিষ্কার পানি ব্যবহার করতে হবে।

৪. যে কোনও উপসর্গ দেখা মাত্র চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে ভুল করা চলবে না। যেমন দীর্ঘ সময় নাক বন্ধ থাকলে সেটা সামান্য ব্যাকটেরিয়াল সাইনোসাইটিস বলে ভুল বুঝবেন না। সময় মতো চিকিৎসা না করলে বিপদ বাড়তে পারে। তাই চিকিৎসা শুরু করতে দেরী করা চলবে না।

৫. বাড়ির কোনও খাবার বেশি দিন থাকলে ,তা না খাওয়াই ভালো। কারণ অনেক সময় সেই সব খাবারে ছত্রাক বা ফাঙ্গাল ইনফেকশন হয়। অন্যদিকে বাইরে থেকে শাকসব্জি এনে তা ভালো করে ধুয়ে রান্না করতে হবে।

মনে রাখা প্রয়োজন যে, কোভিড আক্রান্তদের হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিল, তাঁদের মধ্যে এই সংক্রমণের সম্ভাবনা বেশি।বিশেষ করে হাসপাতালে ভর্তি রোগী যাঁরা চিকিৎসার প্রয়োজনে ষ্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ গ্রহণের ফলে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা কমে এসেছে, কিংবা যাদের ডায়াবেটিস আছে বা যাঁদের রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা অন্য কোনও কারণে কম, তাঁদের অবশ্যই বাড়তি সতর্কতা প্রয়োজন। কোভিডের মতোই ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণ নাক থেকে ফুসফুসে পৌঁছে গেলে, সেটা মারাত্মক রুপ নিয়ে নেয়।

আশার কথা, এই রোগ আগেও ছিল।কিন্তু গত বছর থেকে হু হু করে বাড়ছে এই সংখ্যা। এবং এদের প্রায় সবাই কোভিড আক্রান্ত। উপসর্গ দেখা দেয়ার শুরুতেই যদি এই রোগ ধরে ফেলা সম্ভব হয়, তাহলে তেমন ভয়ের কারণ নেই।

আসুন এই সময়ে সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি এবং সতর্ক থাকি ।

লেখক : সাবেক পরিচালক, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। 


Somoy Journal is new coming online based newspaper in Bangladesh. It's growing as a most reading and popular Bangladeshi and Bengali website in the world.



স্বত্ব ২০২১ সময় জার্নাল | ডেভেলপার এম রহমান সাইদ