শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

উনসত্তরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

মঙ্গলবার, জুলাই ৬, ২০২১
উনসত্তরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

নোমান ইমতিয়াজ, রাবি প্রতিনিধি: ২টি অনুষদে ৬টি বিভাগ নিয়ে দেশের দ্বিতীয় বিশ^বিদ্যালয় হিসেবে ১৯৫৩ সালের ৬ জুলাই যাত্রা শুরু করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি)। নানা গৌরবোজ্জল ঐতিহ্য নিয়ে ৬৮ বছর অতিক্রম করে ৬৯ বছরে পা রেখেছে বিশ^বিদ্যালয়টি।

প্রতিষ্ঠাবর্ষিকী উপলক্ষে প্রতিবছর বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন ও বিভিন্ন বিভাগের পক্ষ থেকে নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে এবছর বড় কোনো কর্মসূচি হতে নেই নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তাই সীমিত পরিসরে পালিত হচ্ছে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর দেশের সব কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত করার প্রক্রিয়া শুরু হয়। এ সময় স্যাডলার কমিশন রাজশাহীতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সুপারিশ করে। ১৯৫০ সালের ১৫ নভেম্বর রাজশাহীর বিশিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে ৬৪ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। ১৯৫৩ সালের ৩১ মার্চ প্রাদেশিক পরিষদে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় আইন পাস হয়। একই বছরের ৬ জুলাই ড. ইৎরাত হোসেন জুবেরীকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য করে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

কালের পরিক্রমায় ১৬১ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু করা মতিহারের সবুজ চত্বরটি এখন প্রায় ৩৮ হাজারের অধিক শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছেন। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়টিতে বর্তমানে ১২টি অনুষদে ৫৯টি বিভাগ নিয়ে কার্যক্রম করছে। এমফিল ও পিএইচডিসহ উচ্চতর গবেষণার জন্য এখানে রয়েছে ৬টি ইন্সটিটিউট। শিক্ষার্থীদের পাঠদান ও গবেষণার জন্য ১ হাজার ২০০ এর বেশি শিক্ষক ও ২ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী দায়িত্বরত রয়েছেন। আরো রয়েছে ১২টি একাডেমিক ভবন ও ছাত্রদের থাকার জন্য ১১টি আবাসিক হল এবং ছাত্রীদের জন্য রয়েছে ৬টি হল।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে শুরু করে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনসহ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সকল আন্দোলনে অনুকরণীয় অবদান রেখেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯৬৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি, আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনের সময় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর আক্রমণের মুখে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের রক্ষা করতে গিয়ে শহীদ হন ততকালীন প্রক্টর সৈয়দ মুহাম্মদ শামসুজ্জোহা। দেশের প্রথম শহীদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে গন্য তিঁনি।

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হবিবুর রহমান, অধ্যাপক সুখরঞ্জন সমাদ্দার, মীর আবদুল কাইয়ুমসহ অনেক ছাত্র-শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী শহীদ হন।

এছাড়া ১৯৮০ সালে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনেও সোচ্চার ছিল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষকসহ আপামর জনসাধারণ। 

এই ৬৮ বছরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করেছে অনেক গুণীজন। তাদের মধ্যে অন্যতম, ভাষা বিজ্ঞানী ও সাহিত্যিক ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, সেলিনা হোসেন, ইতিহাসবিদ আব্দুল করিম, তাত্তি¡ক ও সমালোচক বদরুদ্দীন উমর, চলচ্চিত্র পরিচালক গিয়াসউদ্দিন সেলিম, নাট্যকার মলয় ভৌমিক, চলচ্চিত্র পরিচালক গিয়াসউদ্দিন সেলিম প্রমুখ।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী, কর্মকর্তা-কর্মচারী, অ্যালামনাইসহ সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রুটিন উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা।

শুভেচ্ছা বার্তায় অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেছেন- ‘বিগত প্রায় সাত দশক ধরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় দেশে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণাক্ষেত্রে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। এর স্নাতকরা দেশবিদেশে নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে সাফল্য ও উৎকর্ষের স্বাক্ষর রেখে চলেছে। ফলে এই বিশ্ববিদ্যালয় এক বিশেষ মর্যাদা লাভ করেছে। আগামী দিনগুলিতেও সে ধারা অক্ষুন্ন থাকবে বলে আমি আশা রাখি।’

তিনি বলেন, ‘১৯৫৩ সালে দুটি অনুষদের ছটি বিভাগ নিয়ে যে বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয়েছিল আজ সেখানে ১২টি অনুষদের ৫৯টি বিভাগ ও ৬টি ইনস্টিটিউটে শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম চলছে। আগামীতে এখানে আরো কয়েকটি অনুষদ ও বিভাগ চালুর পরিকল্পনা আছে। বিগত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে এখানে অবকাঠামোগত উন্নয়নের এক গতিশীল ধারা চলছে। এর ফলে শিক্ষার্থীদের জন্য এক অনুকুল পরিবেশ গড়ে উঠছে। এজন্য সরকারের প্রতি আমরা বিশেষভাবে কৃতজ্ঞ। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে উঠুক এক অপ্রতিদ্বন্দী জ্ঞানকেন্দ্র।’

সময় জার্নাল/এমআই 


Somoy Journal is new coming online based newspaper in Bangladesh. It's growing as a most reading and popular Bangladeshi and Bengali website in the world.



স্বত্ব ২০২১ সময় জার্নাল | ডেভেলপার এম রহমান সাইদ