শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

ওজন কমানোর সহজ এবং বেস্ট ডায়েট

সোমবার, আগস্ট ২, ২০২১
ওজন কমানোর সহজ এবং বেস্ট ডায়েট

ডা. অপূর্ব চৌধুরী, লন্ডন, ইংল্যান্ড :
অনেকেই প্রশ্ন করেন কি করে মোটা কমাই । অনেকে অনেক কথা বলেন, বাজারে অনেক ডায়েট চার্ট আছে ।
কেউ বলে এই খাবার খাবেন না, কেউ বলে কার্বোহাইড্রেট কম খাবেন, কেউ বলে ফ্যাট টোটালি খাবেন না । অনেকে বলে যা খাবেন, তা বার্ন করবেন । চাইলেই ঘড়ির কাঁটায় সব হয় না লোকের । জীবন তো মিলিটারির পিটি প্যারেড নয় ।
কোনটা সাময়িক উপকারী, দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতি । কোনটা একজনের জন্যে ওয়ার্ক আউট হয়, আরেকজনের জন্যে যে লাউ, সেই কদু থেকে যায় । কোনটা শুরু করে উপকার পেয়ে থামিয়ে দিল একদিকে আগের চেয়ে দ্বিগুণ মোটা হয়ে যায়, আরেকদিকে বেশিদিন মানলে শরীরের তেরোটা বাজিয়ে দেয় কিছুদিন পরে ।
সব মিলে কোনো ডায়েট চার্ট সার্বজনীন নয় । একটি কারো শরীরের জন্যে হিরো হলে আরেকজনের জন্যে জিরো ।
সবসময় ব্যালেন্সড ডায়েট বেস্ট । ঝুঁকি নেই, কিন্তু দীর্ঘমেয়াদি সময়ে উপকার পাওয়া যায় । সাথে একটিভ লাইফ, পরিশ্রম, ব্যায়াম, পর্যাপ্ত ঘুম ।
একটা সহজ পথ বলি । সহজ এবং বেস্ট ডায়েট ।
এটাকে বলে ইন্টারমিটেন্ট ফাস্টিং । চিকিৎসকরা এটি অ্যাপ্রুভ করেন । কারণ গবেষণায় স্বীকৃত ।
এটা শরীরের কোনো ক্ষতি না করা ডায়েট । বেশিরভাগ ডায়েট খাবারের উপর ভিত্তি করে । কি খাবেন, কি খাবেন না, সাথে কি করবেন, কি করবেন না । কিন্তু ইন্টারমিটেন্ট ফাষ্টিং খাবারের উপর নয়, এমনকি কি করবেন খাবারের পর, সেটার উপরেও নয় । এটা খাবার খাওয়ার সময়ের উপর ভিত্তি করে । কয়েক ধরনের ইন্টারমিটেন্ট ফাস্টিং আছে । সবচেয়ে কার্যকরী দুটো ।
এক. এটাকে বলে 16/8 । পুরো ২৪ ঘণ্টা দুটো ভাগে ভাগ করা । ১৬ ঘণ্টা এবং ৮ ঘণ্টা । মাত্র ৮ ঘণ্টা খাবেন, বাকি ১৬ ঘণ্টা খাবেন না । সচরাচর লোকে ১৬ ঘণ্টা খায়, ৮ ঘণ্টা ঘুমায় বলে সে ৮ ঘণ্টা উপোস থাকে । তো কি করে এটা করবেন দৈনন্দিন কাজে কোনো ক্ষতি না করে ।
সহজ উপায় সকালের ব্রেকফাস্ট বাদ দেয়া । ঘুম থেকে উঠে শুধু গ্রিন টি পান করেন অথবা শুধু পানি খান, অন্য কোনো খাবার নয় । দিনের প্রথম খাবার খাবেন দুপুর ১২ টায় । দ্বিতীয় খাবার খাবেন বিকেল ৪ টায়, রাতের এবং শেষ খাবার খাবেন রাত ৮ টায় । দুপুর ১২ থেকে রাত ৮ টা, তিন বেলাই খেলেন, কিন্তু মাত্র ৮ ঘণ্টায় খেলেন, প্রতিটি খাবারের ব্রেক ৪ ঘণ্টা । রাত ৮ টা থেকে পরদিন দুপুর ১২ টা পর্যন্ত কিছু খাবেন না । তাহলে উপোস থাকলেন ১৬ ঘণ্টা । এটা যেনো অনেকটা গরমকালে প্রতিদিন রোজা রাখা ।
এমন উপায়টিতে আশা করবেন না তিনমাসেই আপনি ঐশ্বরিয়া রায় কিংবা টম ক্রুজ হয়ে যাবেন । এটি ধীরে ধীরে আপনার শরীর শেইপ করবে, শরীরের প্রয়োজনীয় উপাদান ঠিক রাখবে এবং শরীরকে অভ্যস্ত করে তুলবে ।
শরীরে বাড়তি ক্যালরি বেশি জমে রাতে, যখন শরীর একটিভ থাকে না । ১৬ ঘণ্টা খেয়ে মাত্র ৮ ঘণ্টা বিশ্রামে শরীরে বার্ন আউট হয় না । কিন্তু সে ১৬ ঘণ্টা আপনি জেগে থাকলেন সকাল ৬ থেকে রাত ১০ টা, তার মাত্র ৮ ঘণ্টা খেলেন, দিনের বাকি ৮ ঘণ্টা এবং রাতের ৮ ঘণ্টা আপনি আসলে উপোস থাকলেন । কিন্তু খাবার তিন বেলাই খেলেন । দৈনন্দিন সময়সূচি এবং কাজের কোনো ক্ষতি হলো না, এতসব খাবার বাছতে হবে না । বিজ্ঞানী এবং চিকিৎসকদের গবেষণায় দেখা গেছে এটি শরীরের কোনো ক্ষতি না করে ওজন কমাতে দারুণ সাহায্য করে ।
অনেকের জন্যে হয়তো এটি কষ্ট দায়ক । সকালের ব্রেকফাস্ট খেতে পারবে না, এটি শুনলে আগের রাতেই অনেকের ঘুম আসবে না । যদিও প্রথম দিকে একটু কষ্ট হলেও ১৬/৮ ইন্টারমিটেন্ট ফস্টিং কিছুদিন পর সয়ে যায়, তখন সকালের নাস্তা না করলেও ক্ষুধা লাগে না ।
দুই. যাদের জন্যে ১৬/৮ কষ্টকর তাদের জন্যে এই ডায়েট । এটি 12/12 । দিনের ১২ ঘণ্টা খাবেন, কাজ করবেন । রাতের ১২ ঘণ্টা কিছুই খাবেন না । সকাল ৬ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত খাবেন । সন্ধ্যা ৬ টার পর থেকে পরদিন সকাল ৬ টা পর্যন্ত উপোস থাকবেন । সকালের নাস্তা ভোর ৬ টায় করুন, দুপুর ১২ টায় লাঞ্চ করুন, সন্ধ্যা ৬ টায় ডিনার করুন । সন্ধ্যা ৬ টার পর কিছু খাবেন না । রাত ১০ টায় ঘুমিয়ে পড়ুন ।
যেটা যাকে সয়, পরীক্ষা করে দেখুন, কাজে লাগবে । অভ্যাস করে ফেলুন, সহজ মনে হবে । এত সব ডায়েটের চার্ট কিছুদিন মেনে শরীরের বারোটা বাজাবেন না । বরং খাবার গ্রহণ এবং বিশ্রামের একটি নিয়ম অভ্যাসে পরিণত করলে শরীর ঠিকমতো চলবে, পুষ্টির কোনো ঘাটতি হবে না, মেদ ভুঁড়ি জমবে না । সাথে ব্যালেন্সড ডায়েট, ব্যায়াম, একটিভ লাইফ এবং পর্যাপ্ত ঘুম ঘুমান ।
শরীর ভালো থাকবে ।


Somoy Journal is new coming online based newspaper in Bangladesh. It's growing as a most reading and popular Bangladeshi and Bengali website in the world.



স্বত্ব ২০২১ সময় জার্নাল | ডেভেলপার এম রহমান সাইদ