আজ শনিবার, জানুয়ারী ২৩, ২০২১ | ৯ মাঘ, ১৪২৭

শিরোনাম

মনুষ্যত্ব

প্রকাশিত: রোববার, ডিসেম্বর ২০, ২০২০


মনুষ্যত্ব

সিলভিয়া আক্তার : 

করোনাভাইরাস আহনের পর থাইকা সবার মুখে শুধু আমারই নাম- 'মাস্ক'।

কারখানা থাইকা আইজ দোকানে নিয়া আইলো। আমারে পরার মালিক যে কে হইবো কে জানে! দুইডা দিন পর বয়স বাড়লে গিয়া ডাস্টবিনে ফালায়া দিবো। করোনাভাইরাসের থাইকা যে বাচাইলাম এইডা আর শুকরিয়া করবো না। হায়রে জীবন! 

ঐতো আমারে লওয়ার মালিক আইছে মনে হইতাছে! দোকানির লগে এহন পাঁচ টাকা দশ টাকা কইরা দর কষাকষি করবো। 

যাক, দশ টাকাতেই নিলো।

উহ! মা গো মা! এম্নে পা দুইডা টাইনা কানের পিছনে নিয়া যায় যেন কোনো দয়া-মায়া নাই। হাত ভরা জীবাণু। হ্যান্ড স্যানিটাইজার হাতে মাইখা আমারে ধরতে হয়, জানে না নাকি! বাঙালি যে মানুষ হইবো কবে কে জানে!

অনেক ধকল গেলো আইজ। 

আরে আরে করে কি! সারাডা দিন করোনার লগে লড়াই করলাম। আমারে রাখবো কই বদ্ধ জায়গায়, তা না কইরা বিছানাডার উপরে আমারে ফালায়া নিজে গোছলখানায় ঢুইকা গেলো। লাভটা কি হইলো তয় আমারে পইড়া। উফ! আমার কি বাপু। একটু আরামে ঘুমাই। কাইল থাইকা তো আবার ডাস্টবিনে থাকতে হইবো।

সকাল সকাল বাইর হইলো আমারে লইয়া, শান্তি নাই আর। যাক হাত দুইডা এহন পরিষ্কারই আছে মালিকের। 

ওমা! নাকের নিচে রাইখা দিলো আমারে। শুধু মুখ ঢাইকা লাভ কি৷ করোনা তো নাক দিয়া ঢুইকা গলায় যাইয়া বাস করবো। তারপর ঠুস কইরা জীবনডা নিয়া যাইবোগা একদিন। যহন আমারে পড়ার নিয়মই না মানে, কিনে কেন আমারে বুঝিনা।

সন্ধ্যা হইছে। 

ডাস্টবিনে ফালায়া গেলোগা। কি দুর্গন্ধ চারিদিকে! মাছির ভনভন! তগোই তো জীবন। কেনাবেচা করে না কেউ। সবখানে ঘুইরা বেড়াস। আহা!

এই মাঝ রাইতে এইডা আবার কেডা আইলো। আল্লাহ, কই লইয়া যায় আমারে? 

শরীরডা আর চলে না। এতো ধকল কি আর নেয়া যায়। করোনা আইলেও এহন আর রক্ষা করতে পারমু না কাউরে। 

পরেরদিন,
এই যে তুমি আমারে শ্যাম্পু দিয়া ধুইয়া তারপর হুগাইয়া আয়রন করলা। এহন আবার আমারে বিক্রি করবা। আমার ভেতরে তো আর কিচ্ছু নাই। যে কিনবো আমারে, ঠকবো। করোনা আমার ভেতর দিয়া ঢুইকা তার ভেতরে যাইয়া বাস করবো, শেষে জীবনডাই নিয়া নিবো। আহারে, বেচারা! মায়া লাগে বড্ড।

মানুষ রূপি অমানুষ এরা। মনুষ্যত্ব বলতে এগো কিচ্ছু নাই। মাস্ক হইয়া আইজ গর্বই লাগে নিজের কাছে।

লেখক : শিক্ষার্থী; সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

কারাগারে হলমার্কের জিএমের নারীসঙ্গ, ডেপুটি জেলারসহ ৩ জন প্রত্যাহার

কারাগারে হলমার্কের জিএমের নারীসঙ্গ, ডেপুটি জেলারসহ ৩ জন প্রত্যাহার

যাদবপুরে নৌকার মাঝি হতে চান মুক্তিযোদ্ধা আউলাদ

যাদবপুরে নৌকার মাঝি হতে চান মুক্তিযোদ্ধা আউলাদ

করোনায় আক্রান্ত জিদান

করোনায় আক্রান্ত জিদান

সত্তরোর্ধ্ব বৃদ্ধাকে নির্যাতন: গৃহকর্মী রেখা রিমান্ডে

সত্তরোর্ধ্ব বৃদ্ধাকে নির্যাতন: গৃহকর্মী রেখা রিমান্ডে

ওবায়দুল কাদেরকে কটূক্তি, কাদের মির্জার অনশন

ওবায়দুল কাদেরকে কটূক্তি, কাদের মির্জার অনশন

ভারতের চলচ্চিত্র উৎসবে তৌকীরের দুই ছবি

ভারতের চলচ্চিত্র উৎসবে তৌকীরের দুই ছবি

এবার পাকিস্তানকে টিকা উপহার দিচ্ছে চীন

এবার পাকিস্তানকে টিকা উপহার দিচ্ছে চীন

কাউন্সিলর তরিকুলের হত্যা ছিলো পূর্ব পরিকল্পিত, ঘাতক আটক

কাউন্সিলর তরিকুলের হত্যা ছিলো পূর্ব পরিকল্পিত, ঘাতক আটক

সিরিজ জয়:  টাইগারদের অভিনন্দন জানালেন প্রধানমন্ত্রী

সিরিজ জয়: টাইগারদের অভিনন্দন জানালেন প্রধানমন্ত্রী

ট্রাম্পকে একা ফেলে চলে গেলেন মেলানিয়া!

ট্রাম্পকে একা ফেলে চলে গেলেন মেলানিয়া!

জালে ধরা পড়া লাউভোলা মাছে ভাগ্য খুললো রফিকুলের

জালে ধরা পড়া লাউভোলা মাছে ভাগ্য খুললো রফিকুলের

এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ ঘরে তুললো টাইগাররা

এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ ঘরে তুললো টাইগাররা

ব্যাংকের পরিচালক, এমডিদের সম্পদ বিবরণী দাখিলের নির্দেশ

ব্যাংকের পরিচালক, এমডিদের সম্পদ বিবরণী দাখিলের নির্দেশ

রাত পোহালেই হাতীবান্ধায় প্রধানমন্ত্রীর ঘর পাচ্ছেন ৪২৫ পরিবার

রাত পোহালেই হাতীবান্ধায় প্রধানমন্ত্রীর ঘর পাচ্ছেন ৪২৫ পরিবার

ফিফটি করেই ফিরলেন তামিম

ফিফটি করেই ফিরলেন তামিম

জাতীয় পরিচয়পত্র ধরে ভ্যাকসিন দেয়ার আহ্বান

জাতীয় পরিচয়পত্র ধরে ভ্যাকসিন দেয়ার আহ্বান

মেলায় বেলুন ফোলানোর সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দুই শিশুর মৃত্যু, আহত ১০

মেলায় বেলুন ফোলানোর সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দুই শিশুর মৃত্যু, আহত ১০

দেশে একদিনে আরও ১৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৯

দেশে একদিনে আরও ১৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৯

করোনায় মৃতের পরিবারের হাতে দশ লক্ষ টাকার চেক তুলে দিল ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড

করোনায় মৃতের পরিবারের হাতে দশ লক্ষ টাকার চেক তুলে দিল ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড

সুন্দরবনের গহীনে বাঘের আক্রমনে ২ জন নিহত : নিখোঁজ ১

সুন্দরবনের গহীনে বাঘের আক্রমনে ২ জন নিহত : নিখোঁজ ১